অশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্ধারিত যাইগাতে রাতারাতি ঘড় তৈরি, প্রশাসন কঠোর অবস্থানে।

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের জামসাপুর মৌজার খাস জমির উপর অশ্রয়ণ প্রকল্প- ২ এর আওতায় ভূমিহীনদের জন্য প্রস্তাবিত জমিতে ভূমিদস্যু কতৃক রাতারাতি গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি), বালিয়াকান্দি।


১২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় বালিয়াকান্দি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু দারদা উপস্থিত থেকে উক্ত অভিজান পরিচালনা করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নারুয়া ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কমকর্তা সংকর প্রসাদ বিশ্বাস, অফিস সহায়ক সুদর্শন বিশ্বাস, বালিয়াকান্দি থানা পুলিশ সদস্য ও স্থানীয় জনগণ প্রমুখ।

উল্লেখ্য মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্পে ২ এর আওতায় গৃহহীন ও ভূমিহীনদের আবাস স্থল নির্মানের লক্ষে গত ২৯/০৯/২০২০ খ্রিঃ তারিখে উপজেলা কৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত কমিটির সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৩০ নং জামসাপুর মৌজার বি,এস- ১ নং খতিয়ানের বি,এস- ১৮০, ১৮১,১৮৪ নং দাগের ০.৯২০০ একর জমিতে ২৯ জন ভূমিহীনদের আবাস স্থল নির্মানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তফসিল বর্ণিত ভূমি গত ৫/১১/২০২০ খ্রিঃ তারিখে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) বালিয়াকান্দি মহোদয় পরামর্শ করেন এবং ভূমিহীনদের আবাস স্থল নির্মানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

নারুয়া ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কমকর্তা সংকর প্রসাদ বিশ্বাস বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) বালিয়াকান্দি মহোদয় পরামর্শ করে ভূমিহীনদের আবাস স্থল নির্মানের জন্য ৩০ নং জামসাপুর মৌজার বি,এস- ১ নং খতিয়ানের বি,এস- ১৮০, ১৮১,১৮৪ নং দাগের ০.৯২০০ একর জমি নির্বাচন করা হয়। যার পেক্ষিতে আমরা উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার এর সহযোগিতায় তফসিল বর্ণিত ভূমি মাপ-ঝোক করে জমির সীমানা নির্ধারণ করে সেখানে সরকারী খাস জমির সাইনবোর্ড টানিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু আমি আজ দুপুরে জানতে পারি এই জমির উপর রাতারাতি ঘড় তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে ভূমিদস্যুরা। এসে দেখতে পাই একাধিক ঘড় উঠাইছে স্থানীয় কিছু লোক। পরে জানতে পারি তারা হলেন মোঃ মুকুল কাজী, বকুল কাজী পিংঃ অখিল উদ্দিন কাজী, লিটন কাজী পিংঃকাজী আবুল হোসেন, মোঃ ফরিদ কাজী পিংঃ কাউম উদ্দিন কাজী, মোঃ জেমস কাজী পিংঃ আবু কাজী, মোঃ অঙ্কুর কাজী, পিংঃ রতন কাজী, ছাত্তার কাজী পিংঃ তাছলা কাজী, মোছাঃ হাসনা খাতুন জংঃ ফরিদ আলী প্রমুখ।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু দারদা বলেন, আমি ওই জমিতে বসবাস রত কউকে উচ্ছেদ করবো না, আমার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মানবতার মা শেখ হাসিনার আশ্রয়ণ প্রকল্প স্থাপনের জন্য আমার মাত্র ৬০ শতাংশ জমির দখল নিবো। কিন্তু এই জমির উপর সাইনবোর্ড রেখে গেলে ফেলে দেয়। আবার গত রাতে উক্ত যাইগাতে ঘড় উঠিযেছে যার ফলে আজ আমরা পুলিশ সহ এসে ওই ঘরগুলো যার যার মত সরিয়ে ফেলতে নিদ্দেশ দেই।
ভূমিদস্যুদের বেপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বলেন এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ কর হবে।

Please follow and like us: