মধুখালীতে সরকারি সার উদ্ধার

 

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার কামারখালী বাজারের একটি সার ও কীটনাশকের দোকান থেকে সরকারি সার উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৪ ডিসম্বর) রাত ৯টার দিক ১৩ বস্তা সার উদ্ধার করে । এ সময় সার ব্যবসায়ী মিরাজ মন্ডলকে আটক করা হয়। আটককৃত মিরাজ মন্ডলের বাড়ী উপজেলার আড়পাড়া গ্রামে। মঙ্গলবার আটককৃত সার বিক্রতার বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মধুখালী থানার এস আই সৈয়দ তোফাজ্জেল হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিক কামারখালী বাজারের সার ব্যবসায়ী মিরাজ মন্ডলের দোকান অভিযান চালিয় সরকারিভাবে কৃষকদের মাঝে বিতরণকৃত ৯ বস্তা ডিএপি ও ৪ বস্তা ২৫ কেজি এমপি সার জব্দ করা হয়।

এ সময় সার বিক্রতা মিরাজ মন্ডল (৪০) কে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার মামলার পর তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। মধুখালী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, সংবাদ পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে এসে সত্যতা পেয়েছি। সার ব্যবসায়ীর লাইসেন্স জব্দ করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে কৃষি কর্মকর্তা আলভীর রহমান বলেন তার বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়াজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আটককৃত মিরাজ মন্ডল বলেন, সোমবার দুপুর আমি দোকান ছিলাম না, আমার ছেলে ওই সময় দোকান ছিল।

এমন সময় আড়পাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুর রউফ দোকানে এসে এই সারের বস্তাগুলো রেখে যান। আড়পাড়া ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুর রউফ বলেন, দোকানে আমি সার রাখিনি। আমার কথা বলে কেউ দোকান রেখে এসেছে। আড়পাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ জাকির হোসেন মোল্যা বলেন, করানাকালীন সময়ে সরকারি সার কৃষকদের মাঝে গ্রুপ ভিত্তিকভাবে বিতরণ করা হয়।

সে কারনে হয়তো কয়েকজন কৃষক একসাথে সার এনে ওই দোকানে রাখতে পারেন। এদিকে নাম প্রকাশ অনিছুক একাধিক ব্যক্তি অভিযাগ করে বলেন, সরকারি প্রনাদেনার সার প্রকৃত চাষীদের না দিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বারেরা প্রভাব খাটিয়ে তাদের কাছের লোকদের নামে সার বরাদ্দ দিয়েছেন। তাই তারা সার উত্তোলন করে ওই দোকানে বিক্রি করে দিয়েছেন। মধুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মোস্তফা মনোয়ার বলেন, সরকারি সার উদ্ধারের বিষয়টি জেনেছি। প্রয়াজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Please follow and like us: