মোঃ সিরাজুল ইসলাম মধুখালী উপজেলা উপ-নির্বাচন চেয়ারম্যান পদে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী

সুজল খাঁন, মধুখালীঃ

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলা উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী পাঠক আন্দোলন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা ও বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আবদুর রউফ স্মৃতি সংসদের সহ-সভাপতি মোঃ সিরাজুল ইসলাম।

আসন্ন মধুখালী উপজেলা উপ-নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী চেয়ারম্যান প্রার্থীরা শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। এবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মধুখালী উপজেলার মধুখালী ডায়াবেটিস সমিতির ১ং যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ সিরাজুল ইসলাম ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছেন নৌকার প্রচারণা।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ বুকে ধারণ করে ছাত্র রাজনীতি থেকে উঠে আসা, কৃষকদের কাছে আইকন বলে পরিচিত এবং সর্বদা অসহায় দরিদ্রদের পাশে থাকা সিরাজুল ইসলাম ব্যাপক গণসংযোগ করছেন। দিন রাত সমান তালে প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। চেয়ারম্যান পদ প্রত্যাশী হিসেবে তিনি জনগণের ভালোবাসা পাচ্ছেন অনেক। প্রতিদিন ইউনিয়নে ইউনিয়নে গিয়ে জনসংযোগ করছেন। ভোটারদের কাছে নৌকার পক্ষে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি চাচ্ছেন দোয়া ও ভালোবাসা। অনেকে বুকে জড়িয়ে ধরে করছেন আদর, কেউবা মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছেন দোয়া ও ভালোবাসা।

সিরাজুল ইসলাম মধুখালী ঐতিহ্যবাহী বাগাট ইউনিয়নের পাইক পাড়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবার এর সন্তান। ১৯৫৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারিতে জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমান ঠিকানা
ফরিদপুর জেলার, মধুখালী উপজেলা, পৌরসভা ৪ নং ওয়ার্ড, পশ্চিম গাড়খোলা। তিনি তৎকালীন সময়ের বিশিষ্ট সমাজসেবক মুসলিম জাগরনের একজন আদর্শ পথিকৃত মরহুম মৌলভী মেসের আলী মোল্লা সাহেবের পঞ্চম সন্তান। সিরাজুল ইসলামের মায়ের নাম মৃত নুরজাহান বেগম । তার শৈশব ও কৈশোর কেটেছে মধুখালী উপজেলাতে। এক সন্তানের জনক সিরাজুল ইসলাম ছাত্র জীবন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতি মনে প্রাণে ধারণ করেন।

পারিবারিক সূত্রে আওয়ামী লীগের একনিষ্ঠ কর্মী সিরাজুল ইসলাম ২০১৬ সালে পাঠক আন্দোলন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা, ২০১৭ সালে কামারখালী বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ স্মৃতি সংসদের সহ-সভাপতি, ২০১৯ সালে মধুখালী ডায়াবেটিস সমিতির ১ং যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, মাদারীপুর সিআইডি থেকে পুলিশ ইন্সপেক্টর অবসরপ্রাপ্ত হলেন ২০১৮ সালে।

দলীয় মনোনয়নের ব্যাপারে সিরাজুল ইসলাম বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সঠিক সিদ্ধান্তই নিবেন। যোগ্য ব্যক্তিকেই মনোনয়ন দিবেন। তিনি বলেন, করোনাকালীন সময় থেকে আমি নিজের এবং পরিবারের কথা চিন্তা না করে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে খাবার সামগ্রী বিতরণ করেছি। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে আমার সাধ্যমত সহযোগিতা করে থাকি। আমি সব সময় দরিদ্র কৃষকের পাশে থেকেছি। অসহায় দরিদ্র জনগণের পাশে থাকা আমার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। বলতে পারেন এটা আমার নেশা। এলাকার জনগণ আমাকে নির্বাচন করতে উৎসাহ দিচ্ছেন। তাদের আশা পূরণের জন্য আমি নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী। আশা করছি দল আমাকে মনোনয়ন দিবে। নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে জয়ী হওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অংশীদার হয়ে মধুখালী উপজেলা বাসীদের সেবা নিশ্চিত করতে চান সিরাজুল ইসলাম।

Please follow and like us: