বিয়ে ভাঙ্গলো তরুনীর, বিয়ের আসরে এনজিওর হানা

বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ
বাগেরহাট জেলার, ফকিরহাট উপজেলায় বিয়ের আসরে ঋনের কিস্তি আদায় করতে গিয়ে এক তরুনীর বিয়ে ভেঙ্গে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে “নবলোক পরিষদ” নামের এক এনজিও সংস্থার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলা সদর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামে। এ ঘটনায় ওই তরুনীর মা ইয়াসমিন বেগম ফকিরহাট মডেল থানা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন।
লিখিত অভিযোগে ইয়াসমিন বেগম জানান, তিনি (ইয়াসমিন বেগম) একজন শারিরিক প্রতিবন্ধী ও অসহায় নারী। তার স্বামী সরোয়ার শেখ একজন দিনমজুর। অভাবে পরে তিনি “নবলোক পরিষদ” নামের স্থানীয় একটি এনজিও থেকে কিছু টাকা ঋণ নিয়েছিলেন। যা তিনি নিয়মিত পরিশোধও করছিলেন। করোনাকালে তার ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে সমস্যা হচ্ছিলো। তাই কয়েকটা কিস্তি তিনি দিতে পারেননি। সম্প্রতি তিনি কাজের উদ্দেশ্যে ঢাকায় যান। প্রায় এক সপ্তাহ আগে মেয়ের বিয়ে দেয়ার জন্য ঢাকা থেকে বাড়ীতে আসেন।
অভিযোগে তিনি আরও জানান, গ্রামবাসীর কাছ থেকে আর্থিক ও মানবিক সহায়তা নিয়ে গত ২৮ ডিসেম্বর তার মেয়ের বিয়ের আয়োজন করেন। তিনি বাড়ীতে এসেছেন খবর পেয়ে বিয়ের দিনই এনজিওর লোকজন বাড়ীতে এসে ঋণের টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করাসহ অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এসময় তিনি মেয়ের বিয়ের পর এনজিওর কর্মকর্তাদের ঋণের টাকা ফেরত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন এবং তাদের চলে যেতে বলেন। এসময় এনজিওর লোকজন ছেলে পক্ষকে বলে, এরা লোনের টাকা পরিশোধ করতে পারেনা এদের সাথে ছেলের বিয়ে দিয়েন না। এ কথা শুনে তখন ছেলে পক্ষ মেয়ের বাড়ী ছেড়ে চলে যায়। স্থানীয় লোকজন ছেলে পক্ষকে অনেক অনুরোধের পরও তারা চলে যায়।
এ বিষেয় নবলোক পরিষদের ম্যানেজার ধ্রীমান মহলদার বলেন, বিষয়টি অনাকাংক্ষিত ভাবে ঘটেছে। আমাদের মাঠকর্মীরা ওইদিন গিয়েছিলো তার বাড়ীতে, কিন্তু গালিগালাজ বা কোন খারাপ আচরন করেনি। বিষয়টি স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।
ফকিরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (অফিসার ইনচার্জ) আবু সাইদ মোঃ খায়রুল আনাম বলেন, অভিযোগ পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আমরা অভিযোগ আমলে নিয়ে তদন্ত করছি, সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
Please follow and like us: