দুই লাখ টাকার দাবিতে মিথ্যা অভিযোগ

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
বেনাপোল পোর্ট থানা এলাকায়  পিতৃবিহীন সন্তান জন্মদাত্রী কুলসুম ওরফে টরি রেজাউল নামে তিন সন্তানের এক জনককে দায়ি করেছে। এতে রেজাঊল তার মান সম্মানের হানি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে। বিষয়টি মিমাংসা করে দেওয়ার জন্য একটি পক্ষ দুই লাখ টাকা দাবি করেছে বলেও অভিযোগ করে।  গত ৪ জানুয়ারী থানার দিঘিরপাড় গ্রামে ওই নারী একটি পুত্র সন্তান প্রসাব করে। গ্রামবাসির চাপের মুখে সে একই গ্রামের রেজাউল এর নাম বলে।
থানার দিঘিরপাড় গ্রামের আব্দুর রহিমের পুত্র রেজাউল অভিযোগ করে বলে সে আমার নামে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। এবং সমাজে আমার সন্মন হানি করছে। আমি এই ঘটনার সাথে কোন প্রকার সর্ম্পক্ত  নই।  ওই ঘটনার দিন আমাকে দায়ি করার পর আমি উপস্থিত গ্রামবাসী ও স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে দাবি রাখি যদি এই ঘটনার সাথে কোন ভাবে আমি জড়িত থাকি তা ডিএনএ টেষ্ট করা হোক। কোন প্রকার প্রামান না থাকা সত্বেও আমার নামে যে অভিযোগ করেছে আমি তার তীব্র নিন্দা জানাই। এ ব্যাপারে আমি মান হানির মামলা করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছি। সে আরো জানায় এলাকায় গুঞ্জন রয়েছে ওই নারী একাধিক পুরুষের সাথে মেলা মেশা করে শিশুটির জন্ম দিয়ে থাকতে পারে। সে আরো জানায় তার কাছে সুফিয়া ও স্বপ্না নামে দুইজন নারী দুই লক্ষ টাকা মিমাংসার কথা বলে দাবি করে। আমি তাদের বলেছি এই ধরনের অপকর্মের সাথে আমি জড়িত নই; কেন টাকা দিব। অবৈধ ওই সন্তানের জনকের দাবি করে আমার নিকট থেকে ওই পরিবারটি ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে।  আর ওই পরিবারটিকে ইন্ধন যোগাচ্ছে এলাকার কিছু নারী। আমাকে জড়িয়ে এ ধরনের ঘটনা ইতিমধ্যে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় ও খবর প্রকাশিত হয়েছে তারও আমি তীব্র নিন্দা, ঘৃনা. প্রকাশ করছি। তবে ডিএনএ টেষ্টে যদি আমার সাথে মিলে যায় তবে আমি সকল দায় মাথা পেতে নিব। তার আগে আমার নামে মিথ্যা অপবাদ ও আমার মান সন্মান নিয়ে অথবা অবৈধ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার উদ্দেশ্য থাকলে তা হবে হীনমন্্যতার পরিচয়।  তবে ওই পরিবারে বাড়ির পাশের থাকা সুফি ও ফুলজান তাকে বেশী ইন্ধন যোগাচ্ছে। আর টরি একাধিক পুরুষের সাথে যে মেলা মেশা করে থাকে তারও ইন্ধন দাতা তারা বলে দাবি করে।
Please follow and like us: