বিজিবির হয়রানিতে আমদানি রফতানি বানিজ্যের পরিবেশ নষ্ট হওয়ার অভিযোগ

বিজিবির হয়রানিতে আমদানি রফতানি বানিজ্যের পরিবেশ নষ্ট হওয়ার অভিযোগ

-বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
রফতানি মুখি মাছের ট্রাক দীর্ঘ ৬ ঘন্টা আটকিয়ে তল্লাশি করে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেছি সিএন্ডএফ এজেন্ড ব্যবসায়িরা। রফতানি মুখি ভারতগামি দুটি বাংলাদেশের মাছের ট্রাকে সাদা মাছের কথা বলে ইলিশ মাছ নেওয়া হচ্ছে বলে এমন অভিযোগ এনে গত সোমবার তল্লাশি করে খুলনা ২১ বিজিব সদস্যরা। এ পণ্য আটক নিয়ে বিজিবি ও কাস্টমস এর মধ্যে চরম বাকবিতন্ডাও হয়। গাড়ি দুটি বিজিবি পুটখালী নিয়ে তল্লাশি করতে চাইলে বেনাপোল এর ব্যবসায়ি সংগঠন সিএন্ড এফ স্টাফ এ্যাসোসিয়েশন নেতৃবৃন্দ বাধা প্রদান করে। এরপর রাত ১২ টা পর্যন্ত ট্রাক দুটি তল্লাশি করে ইলিশ বা অন্য কোন জাতিয় পণ্য না পেয়ে বিজিবি ছেড়ে দেয়।
বেনাপোল সিএন্ড এফ স্টাফ এ্যাসোসিয়েশন এর সাধারন সম্পাদক সাজেদুর রহমান বলেন বেনাপোল স্থল বন্দরের ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট করছে বিজিবি সদস্যরা। এরা সীমান্ত দিয়ে ফেনসিডিল সোনা পাচার ধরা বাদ দিয়ে উঠে পড়ে লেগেছে বৈধ আমদানি রফতানি ব্যবসার উপর। পচনশীল রফতানি পণ্য যে ভাবে আটকিয়ে তারা সময় নষ্ট করেছে এতে করে ওই মাছের চালান নষ্ট হবে। ক্ষতিগ্রস্থ হবে রফতানি কারক প্রতিষ্ঠান।

বেনাপোলে ভারত প্রবেশমুখি রফতানি গেটে একাধিক সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান ও বন্দর ব্যবহারকারী সংগঠনগুলো বিজিবির এ হয়রানির তীব্র প্রতিবাদ করে। তারা ব্যবসার পরিবশে নষ্ট করছে বলে দাবি করে। এদিকে ওই সংগঠনের জনৈক একজন ব্যক্তি বলেন, বিজিবি সীমান্ত দিয়ে প্রতিপিছ ফেনসিডিল ৪০ টাকা ডিউটি নিয়ে ছাড়ছে। এরা ফেনসিডিল ব্যবসায়িদের নিকট থেকে প্রতি ১০০ পিচে ৪ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয় বলে ওই ব্যক্তি অভিযোগ করে। এরকম গুঞ্জন সীমান্ত এলাকায় বাতাসেও ছড়িয়ে আছে।

মাছ রফতানি কারক প্রতিষ্ঠান সাউথ ফুড লিঃ খুলনার সিএন্ডএফ প্রতিষ্ঠান বেনাপোলের নিলা এন্টারপ্রাইজ এর ম্যানেজার বলেন, আমাদের অযথা বিজিবি হয়রানি করে ব্যবসার পরিবেশ নষ্ট করছে। আমরা এই হয়রানির ক্ষতিপুরণ চাই। বিজিবির এ হেন অত্যাচার মেনে নেওয়া যায় না।
২১ বিজিবি পুটখালী বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার মশিউর রহমান বলেন, আমরা যে ট্রাক আটকিয়ে ছিলাম সেই ট্রাকে যে ইনফরমেশন ছিল তা পাওয়া যায়নি। এটা ব্যবসায়িদের হয়রানি করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন আমাদের কাছে ইনফরমেশন ছিল ওই গাড়িতে ইলিশ মাছ আছে। এরপর তিনি আর কথা বলতে চান নাই।
বেনাপোল কাস্টমস এর জয়েন্ট কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বিজিবি ভুল তথ্যের ভিত্তিতে ওই পণ্য বাহি গাড়ী তল্লাশি করেছে। কাস্টমস ওই পণ্য নিয়ম অনুযায়ী দেখে কর পরিশোধ করে ছেড়েছে। এরপর অযথা তারা এ হয়রানি করছে। আপনারা এ হয়রানির প্রতিবাদ কেন করেন নাই জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিজিবিকে বলা হয়েছে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে যাচাই বাছাই করার জন্য।

Leave a Reply