“বাগেরহাট এর মোংলায় পুলিশের হাতে ৫ তেল পাচারকারী আটক”

বাগেরহাট জেলার, মোংলা সমুদ্র বন্দরের পশুর চ্যানেল থেকে আবারো তেল পাচারকারী চক্রের ৫ সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার গভীর রাতে চ্যানেলের বাজুয়া ঘাট সংলগ্ন এলাকায় নৌকা বোঝাই করে নিয়ে যাওয়ার সময় হাতেনাতে তাদের আটক করা হয়। এনিয়ে গত দুই মাসে ৫ দফায় ১৫ হাজার ৪৬০ লিটার জ্বালানী তেল (ডিজেল) উদ্ধারসহ এর সাথে সংশ্লিষ্ট ১২ চোরাকারবারীকে আটক করতে সক্ষম হয় আইনশৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

পুলিশ জানায়, মোংলা বন্দর কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা দেশী-বিদেশী তেল পাচারকারী চক্র দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। প্রশাসনের চোখ ফাকী দিয়ে তারা রাতের অন্ধকারে প্রতিনিয়ত জাহাজ ও বোটকার্গো থেকে তেল পাচার করছে। চোরাচালান বা চোরাকারবারীদের দমন করতে পুলিশ, কোষ্টগাডর্, নৌ-বাহিনীসহ আাইনশৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছে। তার পরেও মোংলা বন্দরে চোরাকারবারীদের সাথে রয়েছে একটি প্রভাবশালী গ্রুপ। তারা মুলত এ তেল পাচারের সাথে ওৎপ্রত ভাবে জড়িত রয়েছে। ইতি পুর্বে এদের হাত থেকে বেশ কয়েকটি চালানও আটক করে আইনশৃংঙখলা বাহিনী। এ যাবত আটক করা হয়েছে পাচার সিন্ডিকেট চক্রের ১২ সদস্যকে। মঙ্গলবার সন্ধ্যারাতে ১৫৫০ লিটার ডিজেলসহ ৩জনকে আটক করেছিল কোষ্টগার্ড।

মঙ্গলবার রাতে গোপন সংবাদ পেয়ে পশুর নদীর বাজুয়া ঘাট সংলগ্ন এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশের একটি দল। এসময় পুলিশ দেখে তেল বোঝাই নৌকা নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে তারা। মোংলা থানার সেকেন্ড অফিসার জাহাঙ্গির আলম’র নেতৃত্বে একদল পুলিশ সদস্য ধাওয়া করে ৬টি ড্রাম ভর্তি ডিজেল উদ্ধার করে এবং ৫জন চোরাকারবারীকে আটক করতে সক্ষম হয়। এরা হচ্ছে, মৃত নরেন দাশের ছেলে ফরিদ (৪৫), নিতাই মন্ডলের ছেলে গনেশ মন্ডল (২২), বিশ্বনাথ দাশে’র ছেলে অনিমেষ দাশ (৩২), দুখি দাশ’র ছেলে গৌতম দাশ (২২) ও মৃত নরেন দাশ’র ছেলে বাবু দাশ (২৮), এদের সকলের বাড়ী খুলনা জেলার দাকোপ উপজেলার বাজুয়া ইউনিয়নের আমতলী কাটাকালী গ্রামের বিভিন্ন এলাকায় বলে জানা গেছে।

বুধবার দুপুরে আটক চোরাকারবারীদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালতের নির্দেশনায় তাদের জেল হাজতে পাঠানো হবে বলে মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী।

Please follow and like us: