“বাগেরহাটের হাকিমপুর সামসুল হুদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফিরোজ দূর্নীতির দায়ে বরখাস্ত”

বাগেরহাট সদর উপজেলার হাকিমপুর সামসুল হুদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মদকে নিয়োগে চরম অনিয়ম ও দূর্নীতির দায়ে অবশেষে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের নির্দ্দেশ ক্রমে বিদ্যালয়ের মানেজিং কমিটি এবং একই সাথে তাঁর নিয়োগে চরম দুর্নীতি থাকায় গৃহীত বেতনের সমুদয় অর্থ ফেরৎ দিতেও বলা হয়েছে। এঘটনায় এলাকাবাসির মধ্যে ব্যাপক স্বস্থি ফিরে এসেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাগেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক প্রফেসর অলীউল্লাহ আজমতগীর কর্তৃক ১১অক্টোবর স্বাক্ষরিত ৩৭.১৯.০০০০.০৫৫.১৬.০০৮.২০.৪ পত্রে পাঠানো অত্র বিদ্যালয়ের পরিক্ষা ও নিরিক্ষা প্রতিবেদনের ১৫নং কলামের (ঝ) এর (১) এ নিয়োগ তথ্য ও মন্তব্য কলামে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মদের নিয়োগের সময় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশে বিধি লংঘন, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়ে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে আবেদন,পূর্বের প্রতিষ্ঠানের অনাপত্তিপত্র না থাকা ও ২০০৯সালের ২৫শে নভেম্বের তারিখে তার নিয়োগের দিন ও ২০০৯ সালের ২৯শে নভেম্বর তার নিয়োগ অনুমোদনের দিন সময়ে বিদ্যালয়ে এডহক কমিটি থাকায় তার নিয়োগ বিধি যথাসম্মত হয়নি বলে তিনি সরকারি বেতন পাবেন না বলে ২০১০ সালের ০১মে থেকে ২০১৯সালের ৩মে ডিসেম্বর পর্যন্ত তার মোট গৃহীত বেতন ২৬,৮১,২০০ টাকা ও উক্ত তারিখের পর গৃহীত সকল বেতনের টাকা সরকারী কোষাগারে ফেরৎ দিতে বলা হয়েছে এবং একই পরিক্ষা ও নিরিক্ষা প্রতিবেদনের ৪এর (ক) কলামে বিদ্যালয়ের আয় ব্যায় সংক্রান্ত তথ্য ও মন্তব্যে প্রতিষ্ঠানের আয়-ব্যায় সংক্রান্ত তথ্যাদিতে ব্যাপক অনিয়ম পরিলক্ষিত হওয়ায় তাহার বেতন ভাতাদীর সরকারী অংশ স্থগিত/বাতিলের সুপারিশ করা হয়েছে। যাহার প্রেক্ষিতে গত ১৪ই অক্টোবর অত্র বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষে মানেজিং কমিটির সভাপতি লিটন শিকদার এর সভাপতিত্বে এক জরুরী সভায় উপস্থিত সকল সদস্যের সর্বসম্মিতি ক্রমে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। শুধু তাই নয় একই সভায় উক্ত বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক নিখিল কুমার ঘোষকে (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষকের দ্বায়ীত্ব প্রদান করা হয়েছে।

এব্যাপারে বিদ্যালয়ের সভাপতি শিল্পপতি লিটন শিকদার এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন প্রাপ্ত অডিট রির্পোটের সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য যথাযথ বিধিমোতাবেক প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মেদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং স্থায়ী ভাবে বরখাস্ত করার জন্য যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করা হয়েছে। একই সাথে অত্রপ্রতিষ্ঠানে যোগদানের পর থেকে অধ্যাবদী পর্যন্ত গৃহীত সরকারী বেতনের সমুদয় অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে ফেরৎ দেওয়ার কথা উল্লেখ করে তাকে সাময়িক বরখাস্তপত্র পাঠানো হয়েছে।

এবিষয়ে সদ্য সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মেদ এর সাথে একাধিকবার তার বাড়িতে গিয়ে এবং তার দুইটি মুঠো ফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। উল্লেখ্য সাময়িক বরখাস্ত হওয়া প্রধান শিক্ষক সেখ ফিরোজ আহম্মদের বিরুদ্ধে সম্প্রতি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের স্বাক্ষর জাল করে লোন উত্তোলনের অভিযোগ উঠায় তা তদন্তাধীন রয়েছে।

Please follow and like us: