“বাগেরহাট জেলার মোংলায় গভির নিম্নচাপের প্রভাবে টানা ভারি বৃষ্টিপাত”

বঙ্গোপসাগরে সৃস্টি গভির নিম্নচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত মোংলা সহ সুন্দরবন উপকুলে একটানা ভারি বৃষ্টিপাত সহ ঝড়ো হাওয়া বয়ে যায়। এ বৈরি আবহাওয়ায় মোংলা সমুদ্র বন্দরে স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে। নৌযান কর্মচারীদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার হলেও বৃষ্টির কারণে জাহাজে পণ্য ওঠানামার কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে।

আবহাওয়া অফিস জানায়, উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আর উত্তরপূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। মোংলা সহ তিন সমুদ্র বন্দরে ৪ নম্বর সতর্ক সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। একই সঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সমুদ্রে অবস্থানরত সকল মাছ ধরা নৌকা ও ট্রলার সমূহকে উপকুলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত মাছ ধরার ট্রলার ও নৌকা নিরাপদ অবস্থানে মাছ ধরার জন্য অপেক্ষমান রয়েছে।

এ দিকে মুষলধারে ভারি বৃষ্টিপাত ও ঝড়ো হাওয়ায় এই অঞ্চলে বৈরি আবহাওয়া বিরাজ করছে। টানা বৃস্টিতে জনজীবনে ভোগান্তিসহ বিপাকে পড়ে নিম্নবৃত্ত শ্রমজীবি মানুষ। মষলধারে বৃষ্টিতে মোংলা বিভিন্ন এলাকা এবং আশপাশের নি¤œাঞ্চালে জলাবদ্ধতা এবং মাছের ঘের প্লাবিত হয়ে অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জোয়ার ও বৃষ্টিতে পশুর ও মোংলা নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। সাগর ও নদী উত্তাল রয়েছে। নদী সংলগ্ন চাঁদপাই ইউনিয়নের কানাই নগরসহ আশপাশের কয়েক গ্রাম জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। পৌর এলাকায় জমে থাকা পানি নামতে না পেরে স্থায়ী জলাবদ্ধতায় রুপ নিয়েছে। এসব এলাকার মানুষের দুর্ভোগের অন্ত নেই। অপরদিকে, শুক্রবার এ বন্দরে সার, ক্লিংকার, পাথর, গ্যাস, ফ্লাই আ্যাশসহ ১২টি বাণিজ্যিক জাহাজ এ বন্দরে পণ্য খালাসের অপেক্ষায় এখানে অবস্থান করছিল।

Please follow and like us: