লীভ টুগেদার ঢাকায় মামলা বেনাপোলে

লীভ টুগেদার; একটানা সাত বছর। ঘটনা রাজধানী ঢাকার। শেষ  পরিনতি গড়িয়েছে বেনাপোলে। পোর্ট থানায় অভিযোগ দায়ের এর মধ্য দিয়ে। অভিযোগ প্রতারণার। উত্থাপিত অভিযোগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, ঘটনার নায়ক মেহেদী হাসান ঝন্টু (২৮) আর নায়িকা মোছাঃ হীরা (৩৪) । উভয়ের বাড়ি বেনাপোল। নায়ক এর  পৌরসভার পোড়াবাড়ি ( পিতা আবুল হোসেন) নায়িকার পৌরসভার ছোট আঁচড়া ( পিতা আবুল কাশেম)।

প্রায় বছর সাতেক আগে দুজনের পরিচয়। এবং পরিণয়। সেই অবধি ঢাকায় দুজনার স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে লীভ টুগেদার। এর মধ্যে নায়ক এর  বছর দুই বিদেশ সফর। একটানা এই দীর্ঘ সময়ে তারা বৈধ পন্থায় সংসার জীবনে আবদ্ধ হয়নি। তাতেও তেমন কোন সমস্যা ছিল না। তবে সম্প্রতি নায়ক অন্যত্র বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ায় নতুন ঘটনার সুত্রপাত। ঘটনার দিন গত  সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর । নায়িকা বেনাপোল এর কোন একটি বাড়িতে দুজনের মিলিত হওয়ার একটি  সাজানো আয়োজন করে। সেই অনুযায়ী দুজন এর দৈহিক মিলন কালে পুর্ব পরিকল্পিত সহযোগি কয়েকজন যুবক দ্বারা নায়ক ধৃত হয়। এবং বিয়েতে বাধ্য করার চেষ্টা হলেও কৌশলে কিছু  উত্তম মধ্যম খেয়ে নায়ক পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। এরপর মেয়েটি ওই যৌন মিলনের আলমত পরীক্ষা ; যশোর এর কোন এক হাসপাতালে। রিপোর্ট প্রাপ্তীর পর আজ মঙ্গলবার  এই অভিযোগ দায়ের। অভিযোগ থেকে প্রাপ্ত এবং অভিযোগকারীনির মোবাইল ফোনে কথা বলে এরকম তথ্যাদি পাওয়া গেল।

অভিযোগ  থানা পুলিশের তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই রফিকুল ইসলাম  নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান অভিযোগকারীনি মোছা হীরা উল্লেখিত যুবক মেহেদী হাসান ঝন্টুর বিরুদ্ধে প্রতারনার অভিযোগ উঠিয়েছেন। এদিকে অভিযোগকারিনীর সাথে সরাসরি এই প্রতিবেদকের প্রশ্নে জবাবে  তিনি বলেন বিয়ের প্রলোভনে তাকে একটানা সাত বছর দৈহিক ভাবে ভোগ করেছেন ওই যুবক। এমনকি বিভিন্ন সময় তার কাছ থেকে বিভিন্ন কায়দায় বিপুল পরিমান অর্থ সহযোগিতাও নিয়েছেন।

জানাগেছে অভিযোগ প্রাপ্তির পর পুলিশ এর তদন্তকারী কর্মকর্তা আসামির খোজে গেলে তাকে কোথাও পায়নি। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ রয়েছে।

Please follow and like us: