বেনাপোল চেকপোস্ট শুণ্য রেখায় ভারত-বাংলাদেশ বাণিজ্য বৈঠক

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্য স¤প্রসারণে দুই দেশের কাস্টমস,বন্দর ও ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধিদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার(১৫ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টা থেকে ২ টা পর্যন্ত বেনাপোল-পেট্রাপোল শুণ্য রেখায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনায় দুই দেশের ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা বলেন, সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা আর অবকাঠামোগত সমস্যার কারনে নানান ভাবে এপথে বাণিজ্য ব্যহত হচ্ছে। দিন দিন আমদানি-রফতানির চাহিদা বাড়লেও এসব সমস্যার কারণে বাণিজ্য প্রসার হচ্ছে না। এতে ব্যবসায়ীরা যেমন লোকশানের কবলে পড়ছেন তেমনি সরকারও হারাচ্ছে রাজস্ব। আলোচনায় দুই দেশের কাস্টমস ও বন্দরের কর্মকর্তারা বাণিজ্য সহজীকরনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে ব্যবসায়ী সংগঠনগুলোকে সহযোগীতার
প্রতিশ্রæতি দেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের পক্ষ্যে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের ডেপুটি কমিশনার অনুপম চাকমা, ডেপুটি কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান, বেনাপোল বন্দরের সহকারী পরিচালক আতিকুল ইসলাম, সহকারী পরিচালক সঞ্জয় বাড়ৈ,বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন, সহ-সভাপতি শিমুল হোসেন, কাস্টমস স্টাফ এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান ও ট্রান্সপোর্ট মালিক সমিতির সেক্রেটারী আজিম উদ্দীন গাজী প্রমুখ । ভারতের পক্ষে ছিলেন, পেট্রাপোল কাস্টমসের রফতানি বিভাগের পরিচালক
রাজস্ব কর্মকর্তা মিস্টার মিশ্র, পেট্রাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চন্দ্র, বঁনগা গুডস ট্রান্সপোর্ট এ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারী অরুণ সাহা প্রমুখ। এপথে ভারতীয় আমদানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে শিল্পকারখানার কাাঁচামাল,তৈরী পোশাক,মেশিনারিজ,গর্মেন্টস,কেমিক্যাল পণ্য,কাগজ, মাছ ও বিভিন্ন ধরনের
খাদ্য দ্রব্য। বাংলাদেশি রফতানি পণ্যের মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য পাট ও পাট জাত পণ্য, তৈরী পোশাক,কাঁচা লোহা,বসুন্ধরা টিসু,মেলামাইন,রাইস ডাস্ট,মেহেগনী ফল,গরুর সিং,মশারী,টুকরা কাপড়(জুট) ও মাছ রয়েছে।

Please follow and like us: