বেনাপোলে পারিবারিক দ্বন্দের সংঘর্ষে উভয় দুই পক্ষের ১১ জন আহত

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ
বেনাপোলে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১১ জন আহত হয়েছে। পারিবারিক শালিশী দ্বন্দের কারনে আওয়ামীলীগের দুটি পক্ষর মারামারিতে উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হলেও এ নেপথ্যে রয়েছে চোরাচালানি ঘট দখল ও আধিপত্য বিস্তার বলে অভিযোগ উঠেছে। উভয় পক্ষের আহতরা শার্শার নাভারন বুরুজ বাগান ও যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এর মধ্যে একজন নারীর অবস্থা আশাঙ্কজনক বলে জানায় স্থানীয়রা। দুটি গ্রæপের একটি নিয়ন্ত্রন করে ওই গ্রামের সাবেক মেম্বার সুলতান আহমেদ বাবু অপরটি নিয়ন্ত্রন করে একই গ্রামের আলী আহমেদ নেদা ও সবুর বিশ্বাস।

আহতরা হলোঃ সাদিপুর গ্রামের নেদা ও সবুর এর পক্ষের আলী আহমেদ নেদা (৫৬) সবুর বিশ্বাস (৫৭) আলমগীর বিশ্বাস (৫০) সোহরাব বিশ্বাস (৫২) খোকন বিশ্বাস (৫৫) রাছেল বিশ্বাস ( ৩৫) রফিকুল বিশ্বাস ( ৩০) ও আয়েশা বেগম (৪৫) অপরদিকে সুলতান আহমেদ বাবুর পক্ষের কামাল হোসেন (৫৮) আহসান ( ৩৪) ও সাকিব হাসান (৩০)।

সাদিপুর গ্রামের খোকন বিশ্বাস বলেন, বুধবার রাত্রে একই গ্রামে তাদের মেয়ে জামাইয়ের পারিবারিক শালিশ করতে যায় বাবু মেম্বার এর ভাই ভাতিজা সহ কয়েকজন। এ খবর পেয়ে আমরা সেখানে যেয়ে বলি একপক্ষ শালিশ করলে হবে না। আমরাও গ্রামে বসবাস করি সকলে মিসে বিষয়টি মিমাংসা করলে ভাল হয়। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। তবে এই কথা কাটাকাটিতে তারা মনে করে সাদিপুর ঘাট দখল করার জন্য আমরা গিয়েছি। তখন তারা আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। আমরা খালি হাতে এর প্রতিরোধ করতে না পারলে আমাদের ৮ জনকে কুপিয়ে পিটিয়ে যখম করে। এসময় পাশের দোকানদার আয়েশা ঠেকাতে গেল তাকেও কুপিয়ে আহত করে। তার শিরা কেটে গেছে। তাকে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য নিতে হবে।আমরা জীবন বাচাতে প্রতিপক্ষের লাটি সোঠা কেড়ে নিয়ে তাদের আঘাত করলে তাদেরও ৩ জন আহত হয়। থানায় ৫ সুলতান আহমেদ বাবুকে সহ ৫ জনকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এ বিষয় মোবাইল ফোনে সুলতান আহমেদ বাবুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গ্রামে শামীম হোসেনের পরিবার পারিবারিক দ্বন্দ ফেসাদ থাকায় তা আমার ভাই মিমাংসা করার জন্য গেলে নেদা ও সবুর গংরা তাদের অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করে। এক পর্যায়ে দুপক্ষ হাতাহাতি হয়।

স্থানীয়রা জানায় বুধবার রাত্রে যে গোলযোগ হয়েছে দুই পক্ষের মধ্যে। এটা শুধু ওই পারিবারিক বিষয় নয়। এর নেপথ্যে রয়েছে সাদিপুর সীমান্ত ঘাট ।ওই ঘাট দিয়ে ভারত থেকে রাতের আধারে মাদক সহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য পাচার হয়ে আসে দেশে।

বেনাপোল পোর্ট থানার এস আই মাসুম বিল্লাহ বলেন, সাদিপুর গ্রামে দুই পক্ষের মধ্যে গন্ডোগোল হয়েছে। থানায় একটি অভিযোগও দায়ের হয়েছে। ওই গ্রামে যেয়ে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Please follow and like us:

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here