রিনা বিশ্বাসকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা, থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের 

রিনা বিশ্বাসকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা, থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের
-মিঠুন গোস্বামী রাজবাড়ীঃ

রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার পাট্টা ইউনিয়নের বিলজোনা গ্রামের শ্যামল বিশ্বাস এর কন্যা রিনা বিশ্বাস (২৬) কে গলা টিপে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে স্বামী বিমান বিশ্বাসের বিরুদ্ধে। একই গ্রামের অজিৎ বিশ্বাসের ছেলে বিমান বিশ্বাস।

গত ২০ জুলাই গলাটিপে হত্যার অভিযোগ তুলে একই দিন পাংশা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ (জিডি নং- ৭১৪) দায়ের করা হয়েছে। পাংশা মডেল থানা পুলিশ নিহতের সুরতহাল রিপোর্ট সম্পন্ন করে ময়না তদন্তের জন্য মৃতদেহ রাজবাড়ী মর্গে প্রেরণ করে।
জানা যায়, বিমান বিশ্বাস তার স্ত্রী রিনা বিশ্বাস কে নিয়ে ঢাকার মিরপুর এলাকায় বসবাস করতেন। মৃত্যুর কিছুদিন আগে তারা গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসেন এবং গত (১৭ জুলাই) আবার তারা ঢাকার মিরপুরের বাসায় ফিরে যান। গত ২০ জুলাই সকাল ৯ টার দিকে সেখানেই রিনা বিশ্বাস মারা যান।
স্থানীয়দের মাধ্যমে জানা যায়, ৪ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে বিমান বিশ্বাস।
নিহত রিনা বিশ্বাসের কাকা তপন বিশ্বাস বলেন, আমার ভাস্তি সহজ সরল অন্য দিকে বিমান বিশ্বাস ধুরন্ধর। বিমান বিশ্বাস ঢাকায় আদম ব্যবসা করে। সে প্রেমের জালে ফাসিয়ে আমার ভাস্তিকে বিয়ে করে। এছাড়াও তিনি অভিযোগ করেন পরিকল্পিত ভাবেই আমার ভাস্তিকে হত্যা করেছে বিমান বিশ্বাস। নিহতের নিকট আত্নীয় অতুল সরকার গণমাধ্যম কে বলেন, আমরা চাই সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িতের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি হোক।
এ বিষয়ে কথা বলার জন্য নিহত রিনা বিশ্বাসের স্বামী বিমান বিশ্বাসের মুঠোফোনে কল দিলে অপর প্রান্ত থেকে বলে জামাই বাবু ঘুমাচ্ছে।অর্থাৎ তিনি রিনা বিশ্বাসের ভাই পরিচয় দেন,যখন তাকে বলা হয় রিনার তো কোন ভাই নাই তখন বলে কাকাতো ভাই, আমার বাবার নাম তপন বিশ্বাস। সে বারবার নিউজ না করার অনুরোধ জানায়। সে বলে আমাদের নিজেদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝির ফলে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয় আমার বাবা,যদিও তা তুলে নেওয়া হবে। সে আরও বলেন আমার দিদি যখন মারা যায় তখন আমি দিদির বাসায় ছিলাম।
ঘটনার সত্যতা জানার জন্য রিনা বিশ্বাসের বাবার সাথে কথা বলার জন্য বাড়িতে গেলে বিমান বিশ্বাসের ফোন থেকে কথা বলা ব্যক্তির কথার সাথে কোন মিলখুঁজে পাওয়া যায় নাই। রিনা বিশ্বাসের মা বলেন আমার মেয়ে যখন মারা যায় তখন ঢাকার বাসায় মেয়ে আর জামাই ছাড়া আমার বাড়ির কেউ ছিলো না।মৃত্যুর খবর আমার জামাই আমাদের ফোনে জানালে আমি ও আমার জা ঢাকা গিয়ে মৃত দেহ নিয়ে আসি।
রিনার বাবা শ্যামল বিশ্বাসের কাছে তপন বিশ্বাসের ছেলে কই আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন সে বিদেশ থাকে। পরে আবার বিমান বিশ্বাসের ফোনে কল আর ফোন রিছিভ করেন নাই।
পরে স্থানীয়দের সাথে কথা বলা হলে অনেকই বলে বিমান বিশ্বাস অনেক টাকার মালিক। তাই এখন রিনার বাবা মা কে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে অভিযোগ তুলে নেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছে। তারা বলেন এটা একটি পরিকল্পিত হত্যা।

Leave a Reply