মাগুরায় করোনা সংকটে সরকারী-বে সরকারী পর্যায়ে নগদ অর্থ,খাদ্যসহায়তা বিতরন ও করোনা পরিস্থিতি।

এম,এ,হাকিম, মাগুরা প্রতিনিধিঃ গত ৮ মার্চ ২০ তারিখে দেশে করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়। এ সময়ে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত, সরকার সারা দেশে ১০ দিনের সাধারন ছুটি ঘেষোনা করে। ফলে সকল অফিস আদালত, সপিংমল সহ ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহণ বন্ধ হয়ে যায়।এ পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনায় গোটা দেশ বাসি অলিখিত লকডাউনে ঘরে আটকা পড়ে। এমতাবস্থায় সরকার কর্মজীবি ও নি¤œ আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা কর্মসূচী চালু করে।বর্ধিত লকডাউনে ২ মাসে এ কর্মসূচীর আওতায় সরকারি বেসরকারী পর্যায়ে চাল,ডাল,তেল,আলু,চিনি,লবন,সাবান ইত্যাদির সমন্বয়ে স্পেশাল প্যাকেজের খাদ্য সমগ্রী, ৪ লাখ ২৫হাজার ৭শ ৬৮টি পরিবারের মধ্যে বিতরন করা হয়। এ ছাড়া শিশু খাদ্য ক্রয় সহ নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে ১ কোটি ৬৬লাখ ৩১হাজার টাকা ।
মাগুরা জেলা প্রশাসক কার্য়ালয়ের তথ্য সুত্রে জানা যায় এ কর্মসূচীর আওতায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে,জেলার ৪টি উপজেলায় এ সকল খাদ্য সহায়তা ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়েছে।
গত ৬ জুলাই পর্যন্ত জেলার ৬৪হাজার ১শ ৫০টি পরিবারের মধ্যে ১হাজার ২শ ২৯ মে:টন চাল, ৭৪হাজার ১৮টি পরিবারের মধ্যে ৮৩লাখ ৭৬হাজার টাকা ও সু রক্ষা সামগ্রী বিতরন করা হয়েছে।
এ ছাড়া মাগুরা জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা মূল্যের চাল,ডাল সহ বিভিন্ন খাদ্য পন্যের সমন্বয়ে ৭হাজার প্যাকেট খাদ্য ও ৩ লক্ষ টাকা মূল্যের সু রক্ষাসামগ্রী এবং নগদ ৭৫ হাজার টাকা বিতরন করা হয়।
মাগুরা ১ আসনের সংসদ সদস্য জনাব সাইফুজ্জামান শিখর,লকডাউন চলাকালে ,মাগুরায় অবস্থান করে,জেলার এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটে গেছেন এবং সার্বক্ষনিক অসহায় মানুষের পাশে থেকে সাহস জুগিয়েছেন ও খাদ্য সামগ্রী,নগদ অর্থ এবং সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করেছেন।গত ১ মে পর্যন্ত তিনি ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে বিভিন্ন খাদ্য পন্যের সমন্বয়ে ২৪ হাজার ৬শ প্যাকেট এর স্পেশাল প্যাকেজ ,নগদ ৪১ লক্ষ ৩৪ হাজার টাকা ও ১ হাজার পিচ সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করেন।
তিনি জেলায় জন সচেতনতা কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে, জেলা যুবলীগের মাধ্যমে আরো ৬হাজার পিচ মাক্স বিতরন ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার জন্য,যুবলীগ সভাপতি ফজলুররহমানের নেতৃত্বে সংগঠনের নেতা কর্মীরা হ্যান্ড মাইকে প্রচার কার্য চলমান রেখেছেন।এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ফারুখ আহমেদ মিলন শিকদার।
জেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক পঙ্কজ কুন্ডুর নেতৃত্বে,দলের পক্ষ থেকে নগদ ৭৫হাজার টাকা, ১হাজার ৫শ প্যাকেট খাদ্য ও সু রক্ষা সামগ্রী বিতরন করা হয়।
সদর উপজেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে ১৬হাজার ৪শ ৪০টি পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা ও নগদ ৬লক্ষ ৭১হাজার টাকা বিতরন করা হয়েছে।।থানা আ’লীগের সভাপতি আশরাফুল আলম বাবুল ফকির এ সকল অর্থ ও খাদ্যপন্য নিজ দায়িত্বে দরিদ্র মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দেয়া নিশ্চত করেছেন বলে জানা গেছে।
মাগুরা পৌরসভার পক্ষ থেকে ১০হাজার প্যাকেট খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।এ সকল তথ্য জানিয়েছেন মাগুরা সদর থানা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আ:মান্নান।
অপর দিকে মাগুরা জেলা জাসদের সাধারন সম্পাদক সমীরচক্রবতী জানিয়েছেন,জাসদ কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সদস্য জাহিদ আলমের নেতৃত্বে -অহিদুল ইসলাম ফনি,মিয়া অহিদ কামাল বাবলু,মৃধা খলিলুররহমান ও এড:মিজানুররহমান প্রমুখ জেলা নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে, বিভিন্ন খাদ্যপন্যের সমন্বয়ে একটি স্পেশাল প্যাকেজ ও সু রক্ষা সামগ্রী-২হাজার পরিবারের মধ্যে বিতরন করেন।এ ছাড়া ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দলের পক্ষ থেকে ৫শটি পরিবারকে দেয়া হয়েছে পোলাউ’র চাল, ডাল,তেল,সাবান,চিনি,কিচমিচ,সেমাই ও মসলা প্যাকেজ। এড:আলী আক্তার জানান মাগুরা রেডক্রি¯েœ্ট ৫শটি অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে। এ দিকে মুক্তিযোদ্ধা পরেশ কান্তি সাহা তার ১মাসের মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকায় ৬০টি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন।
মাগুরা জেলার বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী –নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা পেয়ে যেমন সন্তোষ প্রকাশ করেছেন তেমনি অনেকে না পাওয়ার বেদনায় জন প্রতিনীধিদের নানা দুনীর্তি ও স্বজন প্রীতির অভিযোগ তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
করোনা দুর্য়োগ মোকাবেলায় জেলা গণকমিটি নামে একটি সামাজিক সংগঠন ,সকল রাজনৈতিক,সামাজিক শক্তির সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহনের আহবান জানিয়ে ১১ দফা দাবী বাস্তবায়নের লক্ষ্যে একাধিক মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন করে আসছে এবং এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি স্মারক লিপি প্রদান করা হয়েছে। এ সকল মানব বন্ধন কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন উক্ত সংগঠনের আহবায়ক ও ওয়ার্কাস পাটির মার্কসবাদী অংশের জেলা আহবায়ক কাজী ফিরোজ ও যুগ্ম আহবায়ক ,বাংলাদেশ জাসদ মাগুরা জেলা কমিটির সভাপতি এ টি এম মহব্বত আলী,বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি নেতা আনিসুর রহমান ও বাসদ কেন্দ্রীয় নেত্রী সম্পা বসু প্রমূখ ।
বক্তাগণ ১১দফা দাবী বাস্তবায়নের জন্য জোর দাবী জানান।দাবী সমুহের মধ্যে ত্রান গ্রহীতার আওতা বাড়ানো,ত্রাণ বিতরনে র্দুর্নীতি ও দলীয়করন বন্ধ সহ সর্ব দলীয় গণকমিটি গঠনের সুপারিশ করেন।দরিদ্র,কর্মহীন শ্রমজীবি প্রতিটি পরিবারকে,ওএমএস কার্ড প্রদান এবং কমপক্ষে ৬মাস আর্মি রেটে রেশন বরাদ্দের দাবী জানান।বক্তাগণ অনতিবিলম্বে মাগুরা সরকারী হাসপাতালে করোনা টেষ্ট বাড়ানো সহ আইসিইউ ও ভেন্টিলেটার স্থাপনের জোর দাবী জনান।এ ছাড়া করোনা যোদ্ধাদের সু রক্ষা নিশ্চিত,সকল ছাত্র মেসমেস ভাড়া মওকুফ ,ননএমপিও ভুক্ত শিক্ষক কর্মচারী,,গৃহকর্মী সহ সকল ক্ষেত্রে শ্রমজীবি ও ক্ষতিগ্রস্ত পেশা জীবিদের ত্রাণ সহায়তা দেয়া সহ ১১দফা দাবী তুলে ধরেন।
করোনা সংকট মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বিত ভাবে ,সংসদ সদস্য,জেলা পুলিশ, স্বশস্ত্রবাহীনি,জেলাপরিষদ,উপজেলা পরিষদ,পৌরসভা,জন প্রতিনীধি,সাংবাদিক, শুশীল সমাজের প্রতিনীধি বৃন্দ এবং নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অনিয়ম ও দুর্নীতি প্রতিরোধ সহ সচেতনতা মূলক সকল কর্মকান্ড অব্যাহত রয়েছে।

Please follow and like us: