নড়াইলে অবৈধভাবে সরকারি গাছ কর্তন,থানায় মামলা

নড়াইলের লোহাগড়ায় অবৈধভাবে সরকারী গাছ কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্থানীয় প্রশাসন দু’টি কাটা গাছ উদ্ধার করেছে। কর্তনকৃত গাছগুলির আনুমানিক মূল্য ৫০ হাজার টাকা। এ ঘটনায় উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের ভ‚মি উপসহকারী কর্মকর্তা (নায়েব) মো.হায়দার আলী বাদী হয়ে ৩জনকে আসামী করে থানায় মামলা করেন। পুলিশ অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়,উপজেলার লক্ষীপাশা ইউনিয়নের ঝিকড়া গ্রামের মৃত জালাল উদ্দিন খানের ছেলে মো. মনিরুজ্জামান খান (৫২) ও মো. ফিরোজ খান (৪৫) এবং মনিরুজ্জামান খানের ছেলে মো.রিমন খান (২৫) স্থানীয় প্রভাব খাটিয়ে দু’টি সরকারী মেহেগুনি গাছ কেটে ফেলে। খরব পেয়ে লক্ষীপাশা ইউনিয়ন ভ‚মি উপসহকারী কর্মকর্তা (নায়েব) মো.হায়দার আলী ঘটনাস্থলে পৌঁছে সরকারী গাছ কাটার বিষয়ে তাদের কাছে জানতে চাইলে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। এ ঘটনায় লক্ষীপাশা ইউনিয়নের ভ‚মি উপসহকারী কর্মকর্তা (নায়েব) বাদী হয়ে ৩জনকে আসামী করে লোহাগড়া থানায় মামলা করেন। (যার নং ১০)
এজাহার ও এলাকা বাসীর সূত্রে জানা যায়, শনিবার (১০অক্টোবর) দুপুরে সরকারী গাছ কর্তনকারীরা লক্ষীপাশা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ১০৭ নং ঝিকড়া মৌজার ‘ক’ তফসিলের ১/১ নং খতিয়ানভুক্ত আর এস ১০১৫ নং দাগের ওপর অবস্থিত বড় আকারের কিছু মেহগনি গাছ কর্তন করে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে লক্ষীপাশা ইউনিয়ন ভ‚মি উপসহকারী কর্মকর্তা (নায়েব)মো.হায়দার আলী ও তার অফিস সহকারী জাহিদুল ইসলাম মৃধা তাৎক্ষণিকভাবে মোটরসাইকেল যোগে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। দেখা যায়,তারা দু’টি সরকারী মেহগুনি গাছ কর্তন করেছে। বাঁধার কারণে বাকি গাছ গুলি কর্তন করতে পারেনি। সরকারি গাছ কাটা থেকে বাধা দিলে তারা উত্তেজিত হয়ে তাদের(আসামীদের) হাতে থাকা দা দিয়ে লক্ষীপাশা ইউনিয়ন ভ‚মি উপসহকারী কর্মকর্তা ও তার অফিস সহকারী জাহিদুল ইসলাম মৃধাকে আঘাত করার চেষ্টা করে। উপস্থিত লোকজনের বাঁধার কারণে মো.হায়দার আলী ও জাহিদুল ইসলাম মৃধাকে আঘাত করতে ব্যর্থ হয়। তবে অকথ্য ভাষায় তাদের গালি-গালাজ করে। কর্তনকৃত গাছগুলির আনুমানিক মূল্য ৫০ হাজার টাকা।

Please follow and like us: