নড়াইলে কলেজের নামে অধিগ্রহনকৃত জমির বাজার মূল্যে পরিশোধের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

নড়াইলে প্রস্তাবিত ‘প্রকৌশলী খান হাতেম আলী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের নামে অধিগ্রহনকৃত জমির বাজার মূল্যে পরিশোধের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
৩০ নভেম্বর সোমবার বেলা সাড়ে ১০টায় ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকদের আয়োজনে প্রস্তাবিত জমির সামনে মানববন্ধন করা হয়। মানববন্ধন শেষে ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিকরা মিছিলসহকারে নড়াইল আদালত সড়কে এসে আবারো মানববন্ধন করে। পরে ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত থেকে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে।
ঘন্টাব্যাপি এ মানববন্ধনে বক্তব্য দেন, ক্ষতিগ্রস্থ জমির মালিক মোঃ বাদশা সরদার, মোঃ ফরিদুল ইসলাম ,প্রশান্ত মল্লিক, শ্রীবাস মিত্র, মোঃ রাদেুল হাসান, জামাল শেখ,রাশিদা খাতুন,মহিউদ্দিন মোল্যা,শিখা নন্দী,যুথিমিত্র, শিউলি দত্ত,নাজমুল হুসাইনসহ অনেকে।


এ সময় বক্তরা বলেন, নড়াইলের শহরতলি মালিবাগ এলাকায় ‘প্রকৌশলী খান হাতেম আলীর নামে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ’ প্রতিষ্ঠিত হবে, সেজন্য আমরা সবাই খুশি। এজন্য আমরা মাননীয় সংসদ মাশরাফি বিন মোর্ত্তজাসহ সকল ধন্যবাদ জানাই। এজন্য ৩৯ জন জমি মালিকের নিকট থেকে নড়াইল সদর উপজেলার ৪নং আউড়িয়া ইউনিয়নের ৫নং বোড়াবাদুরিয়া ৬একর ৫ শতক ও ৫১নং সীমাখালী মৌজায় ১একর ৯৫ শতক মোট ৮ একর জমি অধিগ্রহন করা হচ্ছে। এ সব ত্রি ফসলী জমি, সরকারি আইন আছে ত্রি ফসলী জমি নষ্ট করে, কোন কিছু করা যাবে না। আমরা এখানে যে ফলল উৎপাদন করি ,তাই দিয়ে আমাদের সংসার চলে। সরকারি মূল্যে জমি দিলে আমরা আর কোথাও জমি কিনতে পারবো না । এ পরও এই সব জমি কিন্তু সরকারিভাবে শতক প্রতি মাত্র ১৮ হাজার ৫শ টাকা নির্ধরণ করা হয়েছে, যা বাজার মূল্যের তুলনায় কয়েকগুণ কম। বর্তমানে এ সব জায়গা শতক প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা। আমরা জমির মূল্য নির্ধারণের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে একটি দরখাস্ত করলেও তার কোনো সূরাহা হয়নি। আমরা বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে জমির নায্য পেতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি। যদি আমাদের এ জমির বর্তমান বাজার মূল্য না দেয়া হয়, তাহলে আমরা কেউ জমির টাকা নেব না,প্রয়োজনে দান করে দেব।

Please follow and like us: