নড়াইলে ভিটেমাটি হারানোর ভয়ে দিন কাটছে ঘোষিবাড়িয়া গ্রামের কুমারপাড়ার পালদের

নড়াইলে ভিটেমাটি হারানোর ভয়ে দিন কাটছে ঘোষিবাড়িয়া গ্রামের কুমারপাড়ার পালদের

-নড়াইল প্রতিনিধিঃ
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার মাউলি ইউনিয়নের ঘোষিবাড়িয়া গ্রামের কুমারপাড়া এলাকায় নবগঙ্গার নদীর ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। ¯্রােতের তোড়ে বিহিন হয়েছে বাপ দাদার ভিটে মাটি । অনেকেই বসত ভিটে পাল্টাতে পাল্টাতে জীবনের শেষ প্রান্তে এসে পৌছেছেন। কখন শেষ সম্বল ভিটেটুকু গ্রাস করে নেয় সর্বনাশা নবগঙ্গায়। ইতোমধ্যে অনেকের ঘরবাড়ি ,গাছপালা নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। অনেকে আবার নদীতে চলে যাওয়ার আগেই পাড় থেকে গাছ কেটে সরিয়ে নিচ্ছে।


ঘোষিবাড়িয়া গ্রামের বৃদ্ধ কিশোরী পাল (৮০) বলেন,গত বছর আমার তিনটে ঘর নদীতে চলি গেছে। আমি এহন গরিব মানুষ। আমার বাড়িঘর নাই। পরের জায়গায় একখান টিনের ছাপড়ার মধ্যি বাস করি। নদীর জলে এহন মেলা বেগ (স্রোত)। ভাঙনও শুরু হইছে। ছাপরাডা কি জলেই চলে যায়! ভয়ে রাতি ঘুমাতি পারি না।
নদীর ভাঙনের দিকে তাকালে শিউরে ওঠেন বৃদ্ধ কিশোরী পাল। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে গৃহহীন হয়ে যাওয়ার ভয় কাজ করে তাঁর মধ্যে। কারণ বাপ-দাদার ভিটেমাটি নদীতে চলে যেতে দেখেছেন তিনি।
বৃদ্ধা কিশোরী পাল স্মৃতি হাতড়ে বলেন, ‘আমার বাপ-দাদার ভিটেমাটি সব নবগঙ্গা নদীতে চলি গেছে। চার বিঘে জমির ওপর আমাদের বাড়িঘর ছিল। বড় উঠোন ছিল। কয়েকশ মাটির কাঁচা হাঁড়ি-পাতিল তৈরি করে উঠোনের রোদে শুকুতে দিতাম। বাপ-দাদারা সব মইরে গেছে।’
মাউলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এস কে সাজ্জাদ হোসেন জানান, মাউলি ইউনিয়নের ঘোষিবাড়িয়া গ্রামে ২০০ পাল সম্প্রদায়ের বসবাস ছিল। নদী ভাঙনের কবলে পড়ে এখন সেখানে প্রায় ৫০ ঘর বসবাস করেন। এলাকার নবগঙ্গা নদীর মহাজন এলাকায় ভাঙন শুরু হলে সেখানে সিসি ব্লক দিয়ে ভাঙন রোধ করা হয়। এখন ভাঙন শুরু হয়েছে ঘোষিবাড়িয়া গ্রামে। নদীভাঙন অব্যাহত রয়েছে। ইতোমধ্যে ১০টি বসতবাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে ৪০টি পরিবার। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হলে তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।’
সরেজমিন দেখা গেছে, কালিয়া উপজেলার মাউলি ইউনিয়নের ঘোষিবাড়িয়া গ্রামটি নবগঙ্গা নদীর তীরে। মহাজন খেয়াঘাট থেকে নদীটি ঘোষিবাড়িয়া গ্রামে বাঁক খেয়ে গাজীরহাট পিরোলিস্থানের আত্রাই নদীর সঙ্গে মিলিত হয়েছে। নদীতে এখন প্রচন্ড স্রোত। এ কারণে ঘোষিবাড়িয়া গ্রামের এই বাঁকা স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

এসএসসি পরীক্ষার্থী সঞ্চিতা পাল বলে, ‘নদী ভাঙনের কারণে রাতে অনেকে ঘুমাতে পারে না। গত বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে হঠাৎ করে ভাঙনের শব্দ শুনতে পাই। তখন আমি পড়তেছিলাম। ঘর থেকে বের হয়ে দেখি সামনের সব কিছু ফাঁকা ফাঁকা। ভয়ে সবাইকে ঘুম থেকে ডেকে তুলি।’
নড়াইল পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপবিভাগীয় প্রকৌশলী সুমন সিকাদার বলেন, ‘ঘোষিবাড়িয়া এলাকার ভাঙনের বিষয়টি কালিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাদের জানিয়েছেন। ভাঙন প্রতিরোধে আপদকালীন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা জরুরিভিত্তিতে নেওয়া হবে। এরই মধ্যে অনেক স্থানে ভাঙন প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম চলমান রয়েছে।’

Leave a Reply