নড়াইলে একই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক করোনায় আক্রন্ত

নড়াইলে একই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক করোনায় আক্রন্ত

-নড়াইল প্রতিনিধিঃ নড়াইলের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩জন শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন শিক্ষক হাসপাতালে এবং অন্যান্যরা সবাই বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আক্রন্তরা হয়েছেন লোহাগড়া উপজেলার নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের ৩৩নং হান্দলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী ৩ শিক্ষক।

করোনায় আক্রান্তের খবর ছড়িয়ে পড়লে বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্র শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

হান্দলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের করোনায় আক্রান্ত সহকারী শিক্ষক নাঈম পারভেজ মনি বলেন,‘আমার জ্বরসহ করোনা উপসর্গ দেখা দিলে গত ১৮ সেপ্টেম্বর লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে করোনা পরীক্ষার জন্য নমূনা দেয়া হয়। চারদিন পর গত ২২ সেপ্টেম্বর মোবাইলে ম্যাসেজ আসে যে আমার করোনা পজিটিভ। এরপর শারীরিক অবস্থা খারাপের দিকে গেলে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছি।

এছাড়া আমাদের বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জান্নাত আরা যুথী ও স্বপ্না রানী পালের শরীরে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে নমূনা দেন। তাদেরও পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। বর্তমানে ওই দুই শিক্ষিকা বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।’

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফাতেমা জোহরা বলেন,‘আমাদের ৩৩নং হান্দলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩জন শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এছাড়া মিথিলা ফারজানা নামে আরো একজন সহকারী শিক্ষিকা জ্বরসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে বাড়িতে অবস্থান করছেন। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি এবং শিক্ষার্থীদেরকেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছি।’

লোহাগড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘হান্দলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩জন শিক্ষক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। প্রতিদিন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করেই পাঠদান চালানো হচ্ছে। কেউ অসুস্থ্ হলে তাকে স্কুলে না আসার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ’

এদিকে গত ১৪ সেপ্টম্বর থেকে নড়াইল দক্ষিণপূর্ব মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা সালমা ইয়াসমিন ও একই বিদ্যালয়ে অধ্যায়ণরত ওই শিক্ষিকার ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র তাহমিদ আহমেদ করোনায় আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ হুমায়ুন কবীর জানান, দুটি স্কুলে আরো সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান চালু রাখা হয়েছে।

Leave a Reply