খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরার উপকুলীয় এলাকা পরিদর্শনকালে দূর্গতরা

ত্রান চাই না, চাই টেকসই বেঁড়িবাধ
খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরার উপকুলীয় এলাকা পরিদর্শনকালে দূর্গতরা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ “ত্রান চাই না, চাই টেকসই বেঁড়িবাধ,” একইসাথে চাই আরো কিছু নতুন সাইক্লোন শেল্টার ও ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাঘাট সংস্কার। মঙ্গলবার দুপুরে খুলনার নবাগত বিভাগীয় কমিশনার ড. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা পরিদর্শনকালে ত্রান বিতরনের সময় ক্ষতিগ্রস্ত দূর্গতরা এসব কথা বলেন। তিনি এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা, পদ্মপুকুর, বুড়িগোয়ালিনীসহ বিভিন্ন এলাকা নদী পথে পরিদর্শন করেন।


এ সময় তার সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন, সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল, শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলন, উপজেলা নির্বাহি অফিসার কামরুজ্জামান, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক মমতাজ আহমেদ বাপী, সিনিয়র সাংবাদিক কল্যাণ ব্যানার্জি, প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন এম. কামরুজ্জামান, গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম, সাবেক চেয়ারম্যান সম. লেলিন প্রমুখ।
খুলনা বিভাগীয় কমিশনার এ সময় প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরীর ক্ষেত্রে সচ্ছতা ও জবাবদিতিা নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশানকে নির্দেশ দিয়ে বলেন, ত্রান নিয়ে যেন কোন ধরনের অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ না ওঠে সেজন্য এ বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে যাতে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরী হয় সেজন্য স্থানীয় প্রশাসন ইতিমধ্যে কাজ করছে। তিনি আরো বলেন, প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরী করে তা সরকারের কাছে পাঠানো হবে। ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, উপকুলবর্তী এলাকার টেকসই বেঁড়িবাধ নির্মানে সরকার ইতিমধ্যে পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। অর্থসহ কোন কিছুর সীমাবদ্ধতা নাই। যেটা প্রয়োজন সেটাই করতে সরকার সমর্থক বলে তিনি আরো জানান।
তিনি এ সময় বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের দাতিনাখালী এলাকার ১০০ জন ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রান সামগ্রী বিতরন করেন।
ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন শেষে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার বিকালে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের সাথে এক সমন্বয় সভায় মিলিত হবেন।

Please follow and like us: