30 C
Dhaka
Thursday, May 19, 2022
Google search engine
প্রথম পাতাঃবাংলাদেশঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব সবজির বাজারে, ভরা মৌসুমেও কমছে না শীতের সবজির দাম

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব সবজির বাজারে, ভরা মৌসুমেও কমছে না শীতের সবজির দাম

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব সবজির বাজারে, ভরা মৌসুমেও কমছে না শীতের সবজির দাম

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব পড়ছে সাতক্ষীরা সবজির বাজারে, ভরা মৌসুমেও কমছে না শীতের সবজির দাম
বাজারে উঠছে শীতের সবজি। শীতের সবজিতে ভরা বাজার। দাম তুলনামূলক বেশি। বাজারভেদে দামেরও পার্থক্য রয়েছে।
প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে ক্ষেতভরা ফসলের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। কৃষকের ফসলের ক্ষেতে মই দিয়েছে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। যে কারণে ভরা মৌসুমেও সবজির দাম কমছে না।
বিক্রেতারা জানান, সবজিগুলো বাজারে নতুন ওঠানোর সময় দাম বেশিই রাখা হয়। কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে কিনতে হয় বলে বিক্রিও করতে হয় বেশি দামে। তবে শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সবজির সরবরাহ বেড়ে গেলে দামও কমে আসবে।
সরেজমিনে সাতক্ষীরা, সুলতানপুর বড়বাজার, ইটাগাছা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন ধরনের শীতের সবজি নিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা। সবজির মধ্যে শিম বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকায়, যা এক সপ্তাহ আগে ছিলো ৬৫-৭০ টাকা। ফুলকপি প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৬৫ টাকা, যা এক সপ্তাহ আগে ছিলো ৩০-৩৫ টাকা। বাঁধাকপি প্রতি কেজি আগে ছিলো ২০ টাকা, এখন ২৫ থেকে ৩০ টাকা। বেগুন প্রতি কেজি আগে ছিলো ৩০ টাকা, এখন ৪০ টাকা। করলা আগে ছিলো ৪০ টাকা, এখন ৬০ টাকা। উচ্ছে আগে ছিলো ৬০ টাকা, এখন ৮০ টাকা। ৩০ টাকার বরবটি এখন ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। শীতের সবজির মধ্যে টমেটো থাকলেও এখন সারা বছরই টমেটো পাওয়া যায়। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা কেজি দরে। যা আগে ছিলো ৬০-৭০ টাকা। তবে শীতের নতুন আলু বাজারে আসেনি এখনো। বিক্রেতারা জানালেন, দুই সপ্তাহের মধ্যেই নতুন আলু বাজারে পাওয়া যাবে। তবে আলুর দাম অপরিবর্তনীয়। ২২টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে আলু। ২৫ টাকার পটল এখন ৩৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ২৫ টাকার কলা এখন ৩৫ টাকায় কিনতে হচ্ছে ক্রেতাদের। কচুর দামও একইভাবে বৃদ্ধি পেয়ে ২৫ টাকা থেকে ৩৫ টাকায় ঠেকেছে। প্যাচেঙ্গা ১২ টাকা থেকে ২০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। মুখিকচু ৩৫ টাকা থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৫০ টাকা দরে পেয়েছে। ২০ টাকার পালং শাক এখন ৩০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। ৩০ টাকার ঢেড়শ এখন কিনতে হচ্ছে ৩৫ টাকায়।
কয়েকজন সবজি বিক্রেতা জানান, শিম, ফুলকপি, বাঁধাকপিসহ এসব সবজি বেশি আসছে ভাড়–খালি, মাহমুদপুর, আগরদাড়ি, ফিংড়ী, আলিপুর এলাকা থেকে। সেসব এলাকায় তুলনামূলক উঁচু জায়গায় এসব সবজির চাষ হয়। এছাড়া এসব এলাকায় সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড়ে সব তছনছ হয়ে গেছে। যেসব এলাকায় জলাবদ্ধতার পানি সরে যেতে শুরু করেছে, সেখানেও সবজির চাষ শুরু হয়েছে। সেগুলো একযোগে আসা শুরু হলে দাম অনেক কমে আসবে।
ক্রেতারা বলছেন, ভরা মৌসুমে সবজির দাম আকাশচুম্বী হওয়ায় নি¤œ ও মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষ চরম বিপাকে পড়েছেন। সবজির রাজধানী সাতক্ষীরায় মৌসুমের এ সময় সবজির এমন আক্রা দর তারা কখনো দেখেননি।

Please follow and like us:
RELATED ARTICLES

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -
Google search engine

Most Popular

Recent Comments

Translate »
%d bloggers like this: