সাতক্ষীরায় কাঁকড়া চাষের আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি শীর্ষক পরামর্শ সভা

সাতক্ষীরায় কাঁকড়া চাষের আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টি শীর্ষক পরামর্শ সভা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরায় কাঁকড়া চাষ বৃদ্ধি, সম্প্রসারণ ও বাজারজাত করণের লক্ষ্যে এক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
রোববার বেলা ১১টায় শহরের এল্লারচর মৎস্য প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে নওয়াবেঁকী গণমুখী ফাউন্ডেশনের আয়োজনে সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। বেসরকারী এনজিও সংস্থা নওয়াবেঁকী গণমুখী ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী মো. মাহাবুরব আলমের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিবেশ কর্মকর্তা সরদার শরিফুল ইসলাম, বন কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুদা। নওয়াবেঁকী গণমূখী ফাউন্ডেশনের সমন্বয়কারী (কৃষি) আব্দুল হামিদের পরিচালনায় সভায় প্রকল্পের বিষয়াদি উপস্থাপনা করেন কাকড়া চাষ প্রকল্পের ভ্যালু চেই ফ্যাসিলিটেটর সাইফুল হাসান। এ সময় শ্যামনগর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ফারুক হুসাইন সাগর, আশাশুনি মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম সুলতান, তালা কর্মকর্তা নির্মল কুমার ঘোষ, দেবহাটা কর্মকর্তা বদরুজ্জামান, এনজিএফের এডমিন হুমায়রা লুৎফি, কাকড়া হ্যাচারীর প্রজেক্ট ম্যানেজার মাসুদুল হকসহ সাত উপজেলার কাঁকড়া চাষী ও ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

কাঁকড়া চাষের সমস্যা ও পরামর্শ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন চাষী মানিক চন্দ্র বাছাড়, রাজু সরকার, মহব্বত হোসেন, আবুল কালাম, অসীম কুমার বৈদ্য, নেপাল চন্দ্র মন্ডল ও শাহিন আলম। সভায় জানানো হয়, জেলার সাত উপজেলায় ১১ হাজার ৭২০ জন কাকড়া চাষী রয়েছে। গণমূখী ফাউন্ডেশন কাকড়া চাষ প্রযুক্তি সম্প্রসারণ ও বাজারজাতকরণের মাধ্যমে উদ্যোক্তা আয় বৃদ্ধি ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। এ সময় জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান বলেন, কাকড়া সাতক্ষীরায় একটি সম্ভাবনাময় খাত। এ খাত থেকে প্রচুর আয় করা সম্ভব। সেক্ষেত্রে চাষীদের উদ্বুদ্ধকরাসহ কাকড়া চাষের লাভজনক দিকটার প্রচার ও প্রসার বাড়াতে হবে। এ সময় তিনি চাষীদের কথা শোনেন ও সমস্যার সমাধানের বিষয়ে আশ্বস্ত করেন।

Please follow and like us: