প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলার পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলার পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের দাবীতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন

– সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ সাবেক বিরোধীয় দলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলার নির্দেশদাতা ও হামলায় অংশগ্রহণকারীদের নিন্ম আদালতের রায় বাস্তবায়ন ও পলাতক আসামীদের গ্রেফতারপূর্বক বিচারের দাবীতে সাতক্ষীরায় মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সামনে উক্ত মানববন্ধন কর্মসুচি পালিত হয়।
জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ.কে ফজলুল হকের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। মানবন্ধনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মো. নজরুল ইসলাম।
মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, শেখ সাহিদ উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মো. আসাদুজ্জামান বাবু, সাতক্ষীরা জজ কোর্টের পিপি এ্যাড. আব্দুল লতিফ, জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওসমান গনিসহ আওয়ামীলীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্র।
বক্তারা এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলার নির্দেশদাতা ও হামলায় অংশগ্রহণকারীদের নিন্ম আদালতের রায় বাস্তবায়ন ও পলাতক আসামীদের দ্রæত গ্রেফতারের জোর দাবী জানান।
উল্লেখ্য ঃ ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট তৎকালিন বিরোধী দলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাতক্ষীরায় মুক্তিযোদ্ধার ধর্ষিতা স্ত্রীকে হাসপাতালে দেখে মাগুরা ফিরে যাবার পথে কলারোয়ায় সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হন। এতে শেখ হাসিনা অক্ষত থাকলেও তার সফরসঙ্গী অনেকেই আহত হন। এ ঘটনায় কলারোয়া মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোঃ মোসলেমউদ্দিন ২৭ জনকে আসামী করে একটি মামলা করেন। এ মামলা থানায় রেকর্ড না হওয়ায় তিনি নালিশী আদালত সাতক্ষীরায় মামলাটি করেন। পরবর্তীতে এ মামলা খারিজ হয়ে গেলে ২০১৪ সালের ১৫ অক্টোবর ফের মামলাটি পুনরুজ্জীবিত হয়। এসময় তদন্তকারী কর্মকর্তা সাবেক সাংসদ হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ ৫০ জনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দেন। বর্তমানে এ মামলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক সাংসদ হাবিবসহ ৩৪ জনকে জেল হাজতে রয়েছেন। বাকী ১৫ জন পলাতক রয়েছেন এবং এক জন জেলে থাকা অবস্থায় অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন।

Leave a Reply