শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা মামলায় আসামীর আপীল না মঞ্জুর

সাতক্ষীরায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা মামলায় জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন ৬ আসামীর ৩টি আপীল না মঞ্জুর ও নি¤œ আদালতের রায় বহাল

  • সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ সাতক্ষীরার কলারোয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা মামলার ঘটনায় সাতক্ষীরার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন ৬ আসামীর ৩টি আপীল না মঞ্জুর ও নি¤œ আদালতের রায় বহাল রেখেছে আদালত। সাতক্ষীরার সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান আজ বুধবার বেলা ১২ টায় এ রায় ঘোষনা করেন। এসব আপীল মামলা নিষ্পত্তির জন্য ইতোপূর্বে হাইকোর্টের বেঁধে দেওয়া ২৫ সেপ্টেম্বর সময়ের মধ্যেই এ রায় ঘোষনার নির্দেশ দেয়া হয় বলে জানান জেলা জজ কোর্টের পিপি অ্যাড. আব্দুল লতিফ।
    আদালত সূত্রে জানা যায়, কলারোয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় দ্রæত বিচার আইনের মামলায় গত ৪ ফেব্রæয়ারী সাতক্ষীরার চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত হতে দেয়া রায়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ ৫০ আসামীর সকলকেই বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়। উক্ত রায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে দায়রা জজ আদালতে ক্রিমিনাল আপীল মামলা দায়ের করেন আসামী পক্ষ। এর মধ্যে আসামী গোলাম রসুল আপীল ২৫/২১, আসামী অ্যাড. আব্দুস সাত্তার আপীল ২৭/২১, আসামী অ্যাড. আব্দুস সামাদ আপীল ৩৩/২১ এবং আসামী জহুরুল ইসলাম, শাহাবুদ্দীন, রকিব ও মনিরুল ইসলাম আপীল ৪৩/ ২১ নম্বর মামলা দায়ের করেন। একই সাথে এসব আসামী ওই সময় দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদনও করেন। কিন্তু তাদের জামিন আবেদন না-মঞ্জুর হওয়ায় উক্ত আদশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে তারা জামিন আবেদন করেন। হাইকোর্ট আসামীদের জামিন দিলেও রাষ্ট্র পক্ষের লিভ টু আপীল করার কারনে চেম্বার জজ আদালত তা বাতিল করেন এবং দায়রা জজ আদালতে তাদের দায়েরকৃত ক্রিমিনাল আপীল মামলা ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নিষ্পত্তি করার জন্য নিন্ম আদালতকে নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী উল্লেখিত ৪টি আপীল মামলা সম্প্রতি দায়রা জজ আদালতে দ্রæততম সময়ের মধ্যে শুনানী সম্পন্ন হয় এবং আজ অ্যাড. আব্দুস ছাত্তারের আপীল মামলাটি বাদে বাকী ৩টি মামলায় রায়ের জন্য দিন ধার্য্য করেন আদালত। এ মামলায় ৬ আসামীর ৩টি আপীল না মঞ্জুর ও নি¤œ আদালতের রায় বহাল রেখেছে আদালত। এছাড়া অ্যাড. আব্দুস ছাত্তারের আপীল ২৭/২১ নম্বর মামলাটিতেও আগামীকাল তৃতীয় দিনের মতো অধিকতর শুনানীর জন্য দিন রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আসামী পক্ষের আইনজীবী অ্যাড, আব্দুল মজিদ, মিজানুর রহমান পিন্টু, মিজানুর রহমান বাপী, সেলিনা আক্তার শেলী।
    উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট কলারোয়ার একজন মুক্তিযোদ্ধার ধর্ষিতা স্ত্রীকে দেখতে কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে আসেন সাবেক বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরে বেলা ১২ টার দিকে তিনি তাঁর সফর সঙ্গীদের নিয়ে কলারোয়া হয়ে যশোরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। পথিমধ্যে কলারোয়া বাজারের বিএনপি অফিসের সামনে পৌছালে তাঁকে প্রাণনাশের চেষ্টায় হামলা করে সন্ত্রাসীরা।

Leave a Reply