ক্লাস চলাকালিন জুয়ার আসর ও গাঁজা সেবনের বিষয়ে তোলপাড়, তদন্ত শুরু

সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা হারুনার রশীদ কলেজে ক্লাস চলাকালিন জুয়ার আসর ও গাঁজা সেবনের বিষয়ে তোলপাড়, তদন্ত শুরু

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি ঃ সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা হারুনার রশীদ কলেজে ‘ক্লাস চলাকালিন একটি কক্ষে জুয়ার আসর ও গাঁজা সেবন’ বিষয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। একটি অনলাইন মিডিয়ায় এমন খবর প্রকাশের পর তার সত্যতা সন্ধানে মাঠে নেমেছে পুলিশ,গোয়েন্দা বিভাগ ও কলেজ কর্তৃপক্ষ।
তবে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ফকির আহমেদ শাহ বলছেন, এ অভিযোগ সত্য নয়। কিছু দুষ্টু ছেলে ক্লাস না থাকার সুযোগে উপরতলার একটি রুমে গোপনে তাস খেলে বলে প্রমান পাওয়া গেছে। তবে জুয়া ও মাদক সেবনের অভিযোগ মিথ্যা।
অভিযোগে প্রকাশ কলেজ চলাকালে কিছু উচ্ছৃংখল ছাত্র কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষের উপরে একটি খালি রুমে জুয়ার আসর বসায়। তারা সেখানে গাঁজা সেবন করে থাকে। গত মঙ্গলবার মিডিয়ার সদস্যরা এ খবর জানতে পেরে সেখানে গোপনে যেয়ে তাদের ছবি ধারন করতে থাকে। এ সময় ওই কক্ষে থাকা পাঁচ শিক্ষার্থী পালিয়ে যায়। পরে অধ্যক্ষকে জানানো হলে তিনি শিক্ষকদের নিয়ে সেই কক্ষে যেয়ে এক জোড়া তাস ও তাস খেলার হিসাব লেখা কাগজ পান।
এ ঘটনা মিডিয়ায় ফলাও করে প্রকাশ হবার পর বুধবার সেখানে যান জেলা শিক্ষা অফিসার ও পুলিশ। তারা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছেন। জেলা শিক্ষা অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ খবর সাংবাদিকের কাছ থেকে জানতে পেরে হারুনার রশীদ কলেজে আমি আমার একজন অফিসারকে পাঠিয়েছিলাম। তবে হাতেনাতে আমরা কিছু পাইনি। যে ভিডিওটি ছাড়া হয়েছে তাও যাচাই বাছাইয়ের প্রয়োজন রয়েছে।
এদিকে ঘটনাস্থলে তদন্তে যাওয়া সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হুমায়ূন কবির (এসএসপি সার্কেল) জানান, এ ঘটনা নিয়ে কোনো মামলা হয়নি। এজন্য তদন্ত করে এর রহস্য উদঘাটন চেষ্টাও করা হয়নি। এ বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্যই গুরুত্বপূর্ণ।
পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়াহিদ মোর্শেদ জানান, বিষয়টি কলেজের অভ্যন্তরীন । তারা প্রথমে তদন্ত করে জানালে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবো।
এদিকে, এ সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশের পর কলেজের প্রভাষক আবদুল গফফার কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ওসমানকে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকের হাড়গোড় ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে একই অনলাইন মিডিয়ায় আজ আরও একটি রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রভাষক আবদুল গফফার বলেন, আমি ঘটনার দিন যেসব ছাত্র তাস খেলার সাথে জড়িত তাদের পিটানোর কথা বলেছিলাম। সাংবাদিককে উদ্দেশ্য করে কিছু বলিনি। তবে মানববন্ধন ও কর্মসূচি দেওয়ার করার কথা বলেছিলাম। এ নিয়ে যদি কেউ কোনো অডিও প্রকাশ করে থাকে তবে তার সাথে আমি জড়িত নই।

Please follow and like us:

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here