বগুড়ায় যুবলীগ কর্মী শাকিল হত্যাকান্ডের প্রধান আসামীসহ ৩ জন গ্রেফতার

হত্যার পর থেকে পরিবার নিয়ে ফেরারী… প্রথমে লালমনিরহাট পরে দীর্ঘসময় পর ছদ্মবেশে শহরের বৃন্দাবনপাড়াতে বাসা ভাড়া নিয়ে অবস্থান। দীর্ঘ সময় পার হয়ে গেছে আর কোন ভয় নেই কিন্তু সে চিন্তায় বালি দিয়ে অবশেষে বগুড়া সদর থানা পুলিশের জালে গ্রেফতার একই পরিবারের হত্যা মামলার ৩ আসামী। রোববার রাতে শহরের বৃন্দাবনপাড়ার একটি ভাড়া বাসা থেকে বগুড়া শহর যুবলীগ কর্মী শাকিল হত্যা মামলার প্রধান আসামীসহ পলাতক ৩ জন কে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ।
বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী এবং সদর ওসি হুমায়ুন কবির এর দিকনির্দেশনায় ওসি তদন্ত রেজাউল করিম রেজার নেতৃত্বে পরিচালিত অভিযানে গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলেন, মামলার প্রধান আসামি বগুড়া শহরের আকাশতারা এলাকার মোহাম্মদ আলীর ছেলে সুলতান (৪৮), তার স্ত্রী মলি বেগম (৪০) ও ছেলে শাওন (২৬)।
সদর থানা সূত্রে জানা যায়, এই বছরের গত ১২ জুন দিনের বেলায় শহরের আকাশতারায় শফিকুল ইসলামের ছেলে যুবলীগ কর্মী শাকিলকে (৩২) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এলাকায় বালুর ব্যবসা ও আধিপত্য নিয়ন্ত্রণ নিয়ে এই খুন হয়েছিল বলে পুলিশের ধারনা। পরে শাকিলের বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সুলতান, তার স্ত্রী ও ছেলেসহ ৯ জনের নামে বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন। এ হত্যা মামলায় এর আগে চিনি আল আমিন (৩৪) ও মো: রাফী (২৫) নামে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে সদর থানা পুলিশ। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানার ওসি (তদন্ত) রেজাউল করিম রেজা জানান, শাকিলকে খুনের পর থেকেই সুলতান স্ত্রী, সন্তানসহ লালমনিরহাটে আত্মগোপনে ছিলেন। কিছুদিন আগে থেকে বগুড়া শহরের বৃন্দাবন পাড়ায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন। এমন একটি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে রবিবার রাতে তাদের গ্রেফতার করা হয়। ইন্সপেক্টর রেজা আরো জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীদের সোমবার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে এবং সকলের ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে। পরবর্তীতে আদালত গ্রেফতারকৃত শাওন এর ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে বাকিদের কারাগারে প্রেরণ করেছেন। সেই সাথে তিনি জানান, উক্ত মামলায় এখন পলাতক অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারেও পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Please follow and like us: