ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে আইসিটি শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে বগুড়া নেকটার

দেশের প্রতিটি প্রান্তে ছড়িয়ে যাচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির আলো
ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে আইসিটি শিক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে বগুড়া নেকটার

সঞ্জু রায়: ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে দেশের ৬৪টি জেলার প্রতিটি প্রান্তে আইসিটি শিক্ষার আলো ছড়িয়ে এক ইতিবাচক পরিবর্তনের লক্ষ্যে সফলতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমী (নেকটার) বগুড়া। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় সারাদেশে একমাত্র প্রতিষ্ঠান হিসেবে জন্মলগ্ন হতে অর্ধলক্ষাধিক মানুষকে আইসিটি শিক্ষায় দক্ষ করে তুলেছে এই প্রতিষ্ঠানটি। করোনাকালেও থেমে নেই প্রতিষ্ঠানটির অগ্রযাত্রা ইতিমধ্যেই নেকটার বগুড়া প্রবেশ করেছে ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের (রোবট ও থ্রী-ডি প্রিন্টার) এর প্রশিক্ষণের এক অভিনব যাত্রায়।
১৯৮৩ সালের ১৩ মে নট্রামস্ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা এই প্রতিষ্ঠানটি ১৯৮৪ সালের ১ জুলাই থেকে সরকারিভাবে কার্যক্রম শুরু করে। পরবর্তীতে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নট্রামস্ বিলুপ্ত করে ২০০৫ সালে এই প্রতিষ্ঠানটি নবরুপে আত্মপ্রকাশ করে জাতীয় কম্পিউটার প্রশিক্ষণ ও গবেষণা একাডেমী (নেকটার) হিসেবে। নথিসূত্রে জানা যায়, ১৯৮৪ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি থেকে বিভিন্ন সময়ে এখন পর্যন্ত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছে ৫৩ হাজার ৫’শ ৫৫ জন যারা প্রত্যেকেই তথ্য-প্রযুক্তির বিভিন্ন খাতে দক্ষতা অর্জন করে আজ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এই শিক্ষার আলো প্রসারিত করছে।
নেকটার বগুড়ার উপ-পরিচালক মুহাম্মদ মাহমুদুর রহমানের এর সাথে কথা বলে জানা যায়, নেকটার বগুড়া থেকে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশী সংখ্যক ১৬ হাজার ৮২ জন প্রশিক্ষণার্থী গ্রহণ করেছে ৬ মাস মেয়াদী এ্যাডভান্সড্ সার্টিফিকেট কোর্স অন কম্পিউটার ট্রেনিং এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্তের প্রায় ১২ হাজার ৪’শ ৪২ জন মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি স্কুল ও মাদ্রাসা, এসএসসি ভোকেশনাল এবং এইচএসসি বিএম শিক্ষকগণ ৩০ দিন মেয়াদী আইসিটি প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। এছাড়াও বিভিন্ন মেয়াদে হাজারো প্রশিক্ষণার্থী গ্রহণ করেছে বিভিন্ন যুগোপযোগী স্বল্পমেয়াদী প্রশিক্ষণ যার মাঝে উল্লেখযোগ্য- সি প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্স, স্পেশাল বেসিক লার্ণিং কম্পিউটার কোর্স, গ্রাফিক্স ডিজাইন কোর্স, ডাটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, ফান্ডামেন্টাল অব ওয়েব পেজ ডিজাইন কোর্স, ফান্ডামেন্টাল অব আইসিটি, কম্পিউটার এবং অফিস এ্যাপ্লিকেশন কোর্স, শর্টহ্যান্ড প্রশিক্ষণ কোর্স, এ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট কোর্স, ভিডিও এডিটিং ইত্যাদি।
শুধু সাধারণ শিক্ষার্থী কিংবা শিক্ষকরাই নয় নেকটার থেকে আইসিটি শিক্ষায় প্রশিক্ষন অর্জন করেছেন বিসিএস এর বিভিন্ন ক্যাডারের শতাধিক কর্মকর্তাসহ সরকারি ও গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বেসরকারি দপ্তরের কর্মকর্তাগণ যারা প্রত্যেকেই বর্তমানে নেকটার থেকে প্রাপ্ত আইসিটি শিক্ষাকে দেশের কাজে লাগাচ্ছে প্রতিনিয়ত। শুধু তাই নয় করোনাকালেও প্রতিষ্ঠানটি ভার্চুয়ালী ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন মেয়াদে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন ২ হাজার ৯’শ ১২ জন কে।
প্রতিষ্ঠানটির ২০১৮ সালের একটি ব্যাচের প্রশিক্ষণার্থী নাসির আহম্মেদের এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানটি থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা সে নিয়মিত চর্চা করে আজ ফ্রিল্যান্সিং এর কাজের মাধ্যমে প্রতিমাসে প্রায় ২০ হাজার টাকা রোজগার করছে যাতে তিনি আজ বেকারত্বের বঞ্চনা ঘুচিয়ে উদ্যোক্তা হতে পেরেছেন। শুধু নাসির নয় তার মতো নেকটার বগুড়ার বিভিন্ন ব্যাচের প্রশিক্ষণার্থী যেমন রনি ইসলাম, শাহাদৎ হোসেন, শাহীনুর আখতার, আল-আমিনসহ শত শত প্রশিক্ষণার্থী ফ্রিল্যান্সিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব পেজ ডিজাইন, অফিস এ্যাপ্লিকেশনের নানামুখী কাজের মাধ্যমে নিয়মিত আয় করছেন। যাদের মাঝে অনেকে আছে যারা মাসে ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকাও রোজগার করছেন।
আইসিটি প্রশিক্ষণ গ্রহণ করা খুলনার বারআড়িয়া শহীদ স্মরণী মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক বিকাশ চন্দ্র মন্ডল বলেন, নেকটার বগুড়ার সার্বিক কার্যক্রম অনবদ্য ও চমৎকার। সেখান থেকে প্রাপ্ত শিক্ষা বর্তমানে তিনি শিক্ষার্থীদের মাঝেও সাবলীলভাবে ছড়িয়ে দিতে পারছে।
৪র্থ শিল্প বিপ্লবের অগ্রযাত্রায় সম্প্রতি এই প্রতিষ্ঠানটিতে সংযোজিত হয়েছে রোবট বøুবেরি এবং থ্রিডি প্রিন্টার। রোবটটি জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, অভ্যর্থনা প্রদান এবং কবিতা আবৃত্তি করতে পারে। এ প্রসঙ্গে বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো: শাহজাহান আলী বলেন, নেকটার বগুড়ার এই অসামান্য উদ্যোগের মাধ্যমে আইসিটি শিক্ষা বিস্তারে এক নতুন দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। তিনি নিজেও এই প্রতিষ্ঠানের একজন প্রশিক্ষণার্থী ছিলেন। তিনি প্রতিষ্ঠানটির উন্নতির সাথে সাথেই দক্ষ জনবল সৃষ্টির মাধ্যমে আরো ইতিবাচক পরিবর্তনের আহŸান জানান।
নেকটার বগুড়া প্রসঙ্গে বগুড়া জেলা প্রশাসক মো: জিয়াউল হক এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নেকটার যেভাবে দেশব্যাপী আইসিটি শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে তা বর্তমান সরকারের একটি বিরাট সাফল্য। তিনি নিজে প্রতিষ্ঠানটিতে কয়েকবার গিয়েছে এবং সরেজমিনে তাদের প্রশিক্ষনের মান ও বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের শিক্ষকদের যে কম্পিউটার বিষয়ে মানসম্মত প্রশিক্ষণ দিচ্ছে সেটির তিনি ভূয়সী প্রশংসা করেন।
সার্বিক বিষয়ে নেকটার বগুড়ার পরিচালক মো: শাফিউল ইসলাম (উপ-সচিব) এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ৪র্থ শিল্প বিপ্লবকে সামনে রেখে নেকটার বগুড়ায় প্রতিনিয়ত বিভিন্ন নতুন নতুন কোর্স সংযোজন করা হচ্ছে। একই সময়ে উক্ত প্রতিষ্ঠানে যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নিয়োগ দেয়া হয়েছে আইসিটিতে দক্ষ প্রশিক্ষকদেরও। ভবিষ্যতেও বগুড়া নেকটার আইসিটি শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে নিজেদের সর্বোচ্চ সেবা প্রদানের মাধ্যমে ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে যাবে মর্মে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন এই কর্মকর্তা।

Leave a Reply