গুরুদাসপুরে আওয়ামীলীগের দু’গ্রূপের সংঘর্ষ, পাল্টাপাল্টি মামলায় গ্রেপ্তার ১০

গুরুদাসপুরে আওয়ামীলীগের দু’গ্রূপের সংঘর্ষ, পাল্টাপাল্টি মামলায় দুই গ্রূপের আসামী ৪০ জন গ্রেপ্তার ১০

গুরুদাসপুর (নাটোর) সংবাদদাতাঃ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নাটোরের গুরুদাসপুরে আওয়ামীলীগের দুই গ্রূপের মধ্যে সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় শুক্রবার বিকেলে দশজনকে গ্রেপ্তার করে নাটোর জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। উপজেলার চাপিলা ইউনিয়নের মহারাজপুর গ্রামে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে ওই সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় সোহেল রানা বাদি হয়ে ২২ জনের বিরুদ্ধে এবং মিন্টু গ্রূপের আব্দুল লতিফ বাদি হয়ে ১৮ জনের বিরুদ্ধে গুরুদাসপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এতে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চাপিলা ইউনিয়নের মৃত মোজাহার আলীর ছেলে ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি পদ প্রত্যাশী সোহেল রানা এবং আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের ছেলে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মোক্তাদিরুল ইসলাম মিন্টু বিশ্বাসের মধ্যে আধিপত্য নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে দুই গ্রূপের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এসময় বাড়িঘর ভাংচুরসহ লুটপাটের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ঘটনার রাতেই মিন্টু গ্রূপের হাসান জাহিদ (৩৪), জাকির হোসেন (৩২), সুমন (২৭), নাদিম মোস্তফা (২১), তারেক (৩২), বাবু (৩৮), বুলবুল (৩২) ও ইয়াকুব বিশ্বাস (৪৯) এবং সোহেল রানা গ্রূপের আহাদ আলী (৩২) ও সম্রাট (৩০) কে গ্রেপ্তার করে নাটোর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
সোহেল রানা বলেন, মিন্টু বিশ্বাসের ভাই সেন্টু বিশ্বাসের নেতৃত্বে ইয়াকুব বিশ্বাস, কবির মেম্বার, জিয়াউল মুন্সি তাদের দলবল নিয়ে প্রথমে তাদের বাড়িঘর ভাংচুর করে নগদ ৬ লাখ টাকা লুট ও একটি মোটরসাইকেল ভাংচর করে। সেই সাথে সোহেল রানার বিয়াই সানাউল্লা, রেজাউল ও সাইদুলের বাড়ি ঘর ভাংচুর করে।
মিন্টু বিশ্বাস অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ঘটনাস্থলে গিয়ে আমাদের লোকজনকে শান্ত করেছি। বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের কোন ঘটনা ঘটেনি।
এ ব্যাপারে চাপিলা ইউপি চেয়ারম্যান আওয়ামীলীগ নেতা আলাউদ্দিন ভুট্টু বলেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুল কুদ্দুসের নির্দেশে নাজিরপুর ও বিয়াঘাট ইউপি চেয়ারম্যান শওকত রানা লাবু ও প্রভাষক মোজাম্মেল হকসহ চেষ্টা করেও বিষয়টি মিমাংসা করা যায়নি।
পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে দাবি করে গুরুদাসপুর থানার ওসি মোজাহারুল ইসলাম বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন আছে। আইন শৃংখলার অবনতির চেষ্টা করলে কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা।

Please follow and like us:

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here