নিজেই পরীক্ষা করুন আপনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কিনা

নিজেই পরীক্ষা করুন আপনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কিনা

ঘরে বসেই এখন থেকে করোনাভাইরাসে আপনি আক্রান্ত কিনা অথবা নিজের আক্রান্তের ঝুঁকি নির্ণয় করা যাবে।

করোনাভাইরাসে আপনি আক্রান্ত হওয়ার কতটুকু ঝুঁকিতে রয়েছেন তা জানতে হলে একটি ওয়েব পোর্টালে প্রবেশ করে কিছু তথ্য দিলেই জানা যাবে।

এই টুলটির সাহায্যে আপনি কোভিড-১৯ বা নভেল করোনা ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত কি’না, তা নিজেই মূল্যায়ন করতে পারবেন। এমনকি আপনার ঝুঁকির মাত্রা ও করনীয় সম্পর্কেও জানতে পারবেন। এই সফটওয়্যারটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর গাইডলাইন মেনে তৈরি করা হয়েছে। তবে কোন অবস্থাতেই এই সফটওয়ার থেকে প্রাপ্ত ফলাফলকে অভিজ্ঞ ডাক্তার কর্তৃক স্বাস্থ্য পরামর্শ হিসেবে বিবেচনা করা যাবে না। সফটওয়ারে আপনার শেয়ার করা তথ্যের গোপনীয়তা বজায় রাখা হবে।

লাইভ করোনা টেস্ট ডটকম-এ গিয়ে একজন ব্যক্তি জানতে পারবেন তিনি কতোটা করোনা ঝুঁকিতে আছেন। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর এবং তথ্য প্রদান করে তিনি তার সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে জানতে পারবেন। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে তথ্য ও সেবা দিতে এসব প্ল্যাটফর্ম চালু করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ।

যে সমস্ত তথ্য সমূহ প্রদান করত হবে তা হলো:

  1. আপনার লোকেশন,
  2. বয়স,
  3. আপনার শরীরের বর্তমান তাপমাত্রা কত ডিগ্রী, শ্বাসকষ্ট, শুকনা কাশি, গলা ব্যথা, দুর্বলতা,
  4. অতিরিক্ত কি কি লক্ষণ আপনার রয়েছে?

পেট ব্যাথা, বমি বা পাতলা পায়খানা, বুকে ব্যথা এবং চাপ অনুভব করা, মাংশপেশি তে ব্যাথা, স্বাদ না পাওয়া, নাকে গন্ধ না পাওয়া, চোখ চুলকানো বা লাল হয়ে যাওয়া, তন্দ্রাচ্ছন্নভাব,

  1. আপনার ভ্রমণ এর বিস্তারিত তথ্য দিন:

কোথাও ভ্রমণ করি নাই, লক্ষণ আছে এমন কারো সাথে কাছাকাছি যাই নাই, আক্রান্ত এলাকা বা বিদেশে গত ১৪ দিনের মধ্যে ভ্রমণ করেছি, করোনা আক্রান্ত রুগীর খুব কাছাকাছি গিয়েছিলাম গত ১৪ দিনের মধ্যে

  1. আপনার কি এই রোগ গুলো আগে থেকেই আছে?

ফুসফুসের সমস্যা, হৃদরোগের সমস্যা, উচ্চ রক্ত চাপ, ডায়াবেটিস কিডনির সমস্যা, ক্যান্সার

৮.        আপনার ধুমপানের অভ্যাস আছে কিনা?

… ইত্যাদি

এখন সংক্রিয়ভাবে জানতে পারবেন আপনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কিনা এবং পরবর্তীতে করনীয় একটি বার্তা পাবেন।

উদাহরনঃ

এবার আপনি আপনার নাম, মোবাইল নম্বর এবং সংক্রিয় লোকেশন দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন।

উদাহরনঃ

ওয়েব অ্যাপভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম লাইভ করোনা টেস্ট ডটকম (https://livecoronatest.com/) এবং এ (https://corona.gov.bd/covid19Test) -এ এই ঝুঁকি যাচাইয়ের সেবা পাওয়া যাবে। এছাড়া বিভাগের ম্যাসেঞ্জার গ্রুপ এম.মি স্লাশ আইসিটিডিভিশনবিডি ( m.me/ictdivisionbd ) -এ মিলবে তথ্যসেবা।

প্রবাসী হেল্প লাইন বিস্তারিত তথ্যের জন্য দেখুনঃ https://www.probashihelpline.com/

সোমবার (৩০ মার্চ) বিকেলে এক অনলাইন সংবাদ সম্মেলেনে এসব প্ল্যাটফর্মের ঘোষণা দেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। লাইভ ভিডিও সংবাদ সম্মেলনে এসময় আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলমসহ বিভাগ এবং এর অধীন বিভিন্ন প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যুক্ত ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ওয়েব পোর্টালটি ব্যবহার করে যে কেউ ঘরে বসেই করোনাভাইরাসের ঝুঁকি পরীক্ষ করে নিতে পারবেন। মানুষ নিজেই বুঝতে পারবেন, তার নিজের করোনা ঝুঁকি সম্পর্কে। সে অনুসারে ব্যবস্থা নিতে পারবেন। এর ফলে আইইডিসিআর-এর কল সেন্টারের ফোন দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা অনেকখানিই হ্রাস পাবে। এমনকি প্রথমিক অবস্থায় ডাক্তারদের উপরও চাপ কিছুটা কমবে।

সরকারের আইসিটি বিভাগের সহায়তায় এই ওয়েব পোর্টালটি তৈরি করা হয়েছে। এটির উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, এটির সঙ্গে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা যুক্ত রয়েছেন। আইইডিসিআর-এর হটলাইনে মানুষ করোনা সম্পর্কে যে সব প্রশ্ন করছেন তা পর্যালোচনা করে সফওয়ারে প্রশ্নগুলো সম্পৃক্ত করা হয়েছে।

এই পোর্টাল থেকে সরাসরি ফোনে যোগাযোগ করার ব্যবস্থাও রয়েছে। এছাড়াও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, আইইডিসিআর এবং করোনা ইনফো ওয়েব পেইজ এ প্রবেশ করে আরো বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রায় ৫০,০০০ জন এই পোর্টালটি ব্যবহার করেছেন।

যেসব প্রতিরোধ আর সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে:

  1. বার বার সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধুবেন ( প্রতিবারে ২০ সেকেন্ডের বেশি )।
  2. প্রয়োজনে স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে পারেন।
  3. জরুরি প্রয়োজন ব্যতিরেকে জনসমাগম এড়িয়ে চলুন, বেশিরভাগ সময় বাড়িতে থাকার চেষ্টা করুন।

 প্রতিরোধ এবং সতর্কতা – সাধারণ প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা

সচেতন হন, নিম্নলিখিত ওয়েবসাইটগুলির সর্বশেষ আপডেটগুলি নিয়মিত দেখুন: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা & আইইডিসিআর

সংক্রামিত বেশিরভাগ লোকেরা হালকা অসুস্থতা অনুভব করেন এবং রিকভারও করেন তবে এটি কিছু কিছু ক্ষেত্রে আরও গুরুতর হতে পারে। আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নিন এবং নিম্নলিখিত কাজগুলি করে অন্যকে সুরক্ষা দিন:

  • ঘন ঘন হাত ধুতে থাকুন
  • হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন।
  • সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন
  • কাশি বা হাঁচি হয় এমন কারও সাথে অন্তত 2 মিটার (6 ফুট) দূরত্ব বজায় রাখুন।
  • চোখ, নাক এবং মুখ স্পর্শ করা এড়িয়ে চলুন

আপনি হাত দিয়ে যে কোন কিছু স্পর্শ করার মাধ্যমে ভাইরাসের সংস্পর্শে আসতে পারেন। আপনার হাতে থেকে আপনার চোখ, নাক বা মুখের মাধ্যমে ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করতে পারে।

  • হাঁচি কাশির শিষ্টাচার অনুশীলন করুন

খেয়াল রাখুন যে, আপনার আশেপাশের মানুষজন হাঁচি কাশির শিষ্টাচার মেনে চলছেন। এর অর্থ হচ্ছে- যখনই কারো হাঁচি বা কাশি পাবে, তখনই বাঁকানো কনুই বা টিস্যু দিয়ে মুখ ও নাকটি আবৃত করে রাখতে হবে। অবিলম্বে হাত ধুয়ে ফেলতে হবে অথবা ব্যবহৃত টিস্যুটি ঢাকনাযুক্ত ওয়েস্টবিনে ফেলে দিতে হবে।

  • আপনার যদি জ্বর, কাশি এবং শ্বাস নিতে সমস্যা হয় তবে তাড়াতাড়ি চিকিৎসা সেবা নিন

আপনি অসুস্থ বোধ করলে বাড়িতেই থাকুন। আপনার যদি উচ্চ জ্বর হয়, তবে মাঝারি থেকে তীব্র কাশি এবং শ্বাসকষ্টে অসুবিধা হয় এবং অল্প সময়ের মধ্যে এটি আরও খারাপ হয়, চিকিত্সা সেবা গ্রহণ করুন এবং IEDCR এর যে কোন একটি হটলাইনে কল করুন।

প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন:

Please follow and like us:

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here