০২.০২.২০২০ দিনটি কেন এত গুরুত্বপূর্ণ?

0
257

০২০২২০২০ সংখ্যাটি ভালো করে লক্ষ্য করুন। এই সংখ্যাটি আপনি আবার মনে মনে উল্টো করে সাজান। দেখুন একই সংখ্যা হয়ে যাচ্ছে? বেশ মজার না?
আরো মজার ঘটনা ঘটেছে ঠিক রাত ০২ঃ০২ঃ০২ এর সময়।একে বলা যেতে পারে পারফেক্ট প্যালেনড্রমিক সময়।
এ ধরনের সংখ্যাকে গাণিতিক পরিভাষায় প্যালেনড্রমিক/প্যালিনড্রমিক সংখ্যা বলা হয়। শুধু গনিতেই নয়, শিল্প, সাহিত্য, নকশার জগতে এই ধরনের আলাদা ক্যাটাগরি বা শ্রেণীই রয়েছে। যারা এ ধরণের নকশা বা শব্দ রচনা করতে অভিজ্ঞ হন, তাদের “প্যালেন্ড্রমিস্ট” বলা হয়।

গ্রীক শব্দ প্যালিনড্রোমোস ( palindromos / καρκινικός) থেকে প্যালেনড্রমিক সংখ্যার উৎপত্তি। “প্যালেন” অর্থ “আবার” এবং “ড্রোমোস” অর্থ “ফিরে আসা” । বাংলা ভাষায় একে দ্বিমুখী শব্দ বা সংখ্যা বলা যায়।এবার হয়ত বুঝতে পেরেছেন এর শাব্দিক অর্থের সাথে মূল অর্থ কতটা মিলে যায়?

 

এই জাতীয় প্যালিনড্রোমের শেষ তারিখটি ছিল 11/11/1111 – ৯০০ বছর আগে। এর পরের প্যালেনড্রমিক ডিন হতে যাচ্ছে ০৩/০৩/৩০৩০ যার জন্য আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে প্রায় ১০১০ বছরেরও বেশি।
প্যালিনড্রোমিক লেখা প্রাচীন ‘কিরাতার্জুনীয়’ কাব্যের বহু অনুচ্ছেদে দেখা যায়। এমনই একটি অনুচ্ছেদ হল- “সারস নয়না ঘন অঘ নারচিত রতার কলিক হর সার রসাসার রসাহর কলিকর তারত চিরনাঘ অনঘ নায়ন সরসা”, চতুর্দশ শতকে দৈবজ্ঞ সূর্য পণ্ডিতের লেখা ‘রামকৃষ্ণ বিলোম কাব্যম’ নামে ৪০টি শ্লোকের যে বিখ্যাত কবিতা রয়েছে তার রচনাশৈলীও ভারি অদ্ভুত। প্রতিটি শ্লোকই এক-একটি প্যালিনড্রোম।
আবার কবিতাটি সামনে থেকে পড়লে রাম ও রামায়ণের কাহিনি আর পেছন থেকে পড়লে কৃষ্ণ ও মহাভারতের কাহিনি। যেমন ৩ নং শ্লোকে রয়েছে “তামসীত্যসতি সত্যসীমতা মায়য়াক্ষমসমক্ষয়ায়মা। মায়য়াক্ষমসমক্ষয়ায়মা তামসীত্যসতি সত্যসীমতা।।”
চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের ২ তারিখে বিয়ের জন্য বিশ্ব জুড়ে হুড়োহুড়ি পড়েছে৷এই দিনটিকে সৌভাগ্যের দিন বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।চীনেও সেই প্রভাব পড়েছিল৷তবে এই দিনে সবচেয়ে বিপদে পড়েছেন চীনের সম্ভাব্য দম্পতি ,যারা বেছে বেছে এই দিনটিকেই রেখেছিলেন বিয়ের দিন হিসেবে।
তারই মাঝে করোনা ভাইরাসের আক্রমণ শুরু হতেই পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে যায়৷ সৌভাগ্যের দিন এখন ভুলতে বসেছেন সবাই৷ প্রাণ বাঁচাতে নাক-মুখ ঢেকে ঘরবন্দি চিনারা৷ যে কোনও সময় করোনা ভাইরাস সংক্রমণ হতে পারে৷ আর এই ভাইরাস রোধে এখনও পর্যন্ত প্রতিষেধক বের করা যায়নি৷ ফলে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর সম্ভাবনা প্রবল৷ এমন অবস্থায় বিয়ের দিন পিছিয়ে দিতে চিনের নাগরিক পরিষেবা বিভাগগুলির তরফে বার্তা দিয়ে আপাতত বিয়ে পিছিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হল৷

Please follow and like us: