বাইশে চ্যানেল আই

পৃথিবী করোনা আক্রান্ত। মানুষ শংকিত। আতংকিত। এর ভেতরেই প্রতিকুলতা মোকাবিলার সাহস অর্জন করেছে মানুষ। সবকিছু সীমিত হয়ে গেছে। বেড়ে গেছে গণমাধ্যমের দায়িত্ব। যারা সামনের সারিতে পৃথিবীর এই নতুন যুদ্ধে শামিল রয়েছে তাদের মধ্যে গণমাধ্যমকর্মীরা রয়েছে। গণমাধ্যমে এখন সবচেয়ে আলোচ্য বিষয় করোনা ভাইরাস। পৃথিবী পাল্টে যাওয়ার খবর। অর্থনীতি, বাণিজ্য, সমাজ, পরিবার সবখানে করোনার কঠিন প্রভাব। প্রচলিত জীবনের ছন্দ হারিয়ে গেছে। এর ভেতরেই সাহসটুকু টিকিয়ে রাখার সবচেয়ে বড় প্রয়াস গণমাধ্যমের। কারণ গণ আকাক্সক্ষার কেন্দ্রবিন্দুতে পৌঁছে গেছে গণমাধ্যম। গণমাধ্যমের কাছে মানুষের প্রত্যাশা বেড়ে চলেছে। মানুষের এই চিন্তা ও প্রত্যাশার সম্প্রসারণটিই ঘটেছে আদর্শ গণমাধ্যমের কাছ থেকে। মানুষ যখন দেখে টেলিভিশন তার জীবনকে সহজ করে দিচ্ছে, টেলিভিশন তাকে আত্মবিশ্বাসী করছে, টেলিভিশন তাকে স্বপ্নবান করছে তখনই মানুষ টেলিভিশনের প্রতি ঝুঁকতে থাকে। গণমাধ্যমের প্রতি মানুষের এই আস্থা ও বিশ্বাস সৃষ্টির পেছনেই নিবিড় কর্মসাধনা রয়েছে চ্যানেল আই এর। এ বছর বাইশ বছরে পা রাখলো চ্যানেল আই। চ্যানেল আই প্রাঙ্গন। চেতনা চত্বর। রোদেলা সকালে ছাতিম জামরুলের অসাধারণ ছায়া। বাইশ বছরের এক তারুণদীপ্ত অধ্যায়ের অদ্ভুত মুহূর্ত।
প্রতি বছর এই দিনে এই সময়টিতেই এই প্রাঙ্গন মুখরিত থাকে চ্যানেল আই এর জন্মদিন উদযাপনের আনন্দে। থাকেন চ্যানেল আই পরিচালনা পরিষদের সব সদস্যবৃন্দ। যোগ দেন দেশের বিভিন্ন অংগনের সেরা মানুষেরা। এবারও চ্যানেল আই পরিবারের সবার হৃদয়ে একই উচ্ছ¡াস। কিন্তু এই প্রাঙ্গনে তার ছিটেফোটা নেই। ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড, চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর পরিচালনা পরিষদের সকল সদস্যের পক্ষ থেকে সবাইকে আজ জানাচ্ছেন উষ্ণ অভিনন্দন। শুভেচ্ছা। বলছেন, ‘বাইশে চ্যানেল আই, সামনে এগিয়ে যাই।’
চ্যানেল আই ২২ বছরে পথচলার শুভলগ্নের শুভেচ্ছা জানিয়ে বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ। বিশেষ ক্রোড়পত্রের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পত্রিকা ও মিডিয়ার সঙ্গে তার ও তার পরিবারের সম্পর্ক উল্লেখ করে একটি দীর্ঘ লেখা দিয়েছেন। বাণী দিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ এমপি। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন চ্যানেল আই এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর এবং পরিচালক বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ। ‘বাঙালির যাপিত জীবনে এক নন্দিত আলেখ্যেরই মূর্ত প্রকাশ’ শিরোনামে একটি লেখা লিখেছেন শামসুজ্জামান খান।
সারা পৃথিবীই সীমিত করেছে সবকিছু। করোনা ভাইরাসের আক্রমণে কোভিড ১৯ এর প্রভাবে পৃথিবী পাল্টে গেছে। এখন স্বাস্থ্য সচেতনতার স্বার্থেই এড়িয়ে চলতে হচ্ছে কোলাহল। চ্যানেল আই তার জন্মদিনে বিশ্বব্যাপী বাঙালি দর্শকদের হৃদয়ে পৌছে দিতে চায় একই উচ্ছ¡াস। পৌছে দিতে চায় জন্মদিনের আনন্দ আয়োজন। তাই এবার ছাতিম তলায় জমছে না প্রতিবারের বিশাল বর্ণাঢ্য আয়োজন। এবার চ্যানেল আই এর পর্দাজুড়ে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সকল প্লাটফরমে সারা পৃথিবীর দর্শকদের সঙ্গে হবে ভালাবাসা বিনিময়।

সবাইকে শুভেচ্ছা
একে একে একুশে বছর পেরিয়ে এসেছে চ্যানেল আই। এটি বহু মানুষের শ্রম, নিষ্ঠা, স্বপ্ন আর তৎপরতার যোগফল। সেই সঙ্গে ছয়টি মহাদেশের বাঙালিরা তো আছেনই। যারা সবসময়ই শক্তি ও সাহস যুগিয়ে চলেছেন চ্যানেল আইকে, তার যুগপোযাগী প্রতিটি উদ্যোগকে। যে দায়বদ্ধতা নিয়ে শুরু হয়েছিল পথচলা, সেখান থেকে এক চুলও সরেননি চ্যানেল আই কর্তপক্ষ থেকে শুরু করে এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নিষ্ঠাবান কর্মীরা। যাদের প্রতিদিনের চিন্তা-শ্রম ও নিষ্ঠায় সূচনা হয় একেকটি নতুন অধ্যায়ের, নতুন ধারার। বাইশ বছরে পদার্পণের শুভলগ্নে চ্যানেল আই সকল দর্শক, কর্মকুশলী, বিজ্ঞাপনদাতা, কেবল অপারেটরসহ সবাইকে উষ্ণ শুভেচ্ছা জানায়।
–খবর বিজ্ঞপ্তির

Please follow and like us: