কবি পরিচিতি —

কবি পরিচিতি —

কবি পরিচিতি লেখার মতো জীবন আসলে কবি সুব্রত মিত্রের নেই বললেই চলে। কবি সুব্রত মিত্র কবে এবং কোথায় জন্মগ্রহণ করেন তাও পর্যন্ত প্রমাণস্বরূপ কেউ বলতে পারছেন না।তবে গতবছর কবির এক ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ের মুখে জানা যায় কবি সুব্রত মিত্র সম্ভবত বাংলাদেশের বরিশাল জেলার পিরোজপুর উপজেলার স্বরূপকাঠী থানার মাদ্রা ঝালকাঠী গ্রামে কবির মামা বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। কবির অন্যান্য আত্মীয়রা দাবি করেন কবি সুব্রত মিত্র কোলকাতার নিলরতন হাসপাতালে জন্মগ্রহণ করেন। কবি সুব্রত মিত্রের বাবার নাম-শ্রী সুকুমার মিত্র। মাতা -স্বর্গিয়া কাজল মিত্র। জন্মের একবছর পর থেকেই কবি তাঁর মা-বাবা ও আত্মীয় পরিজনের সহিত কোলকাতায় নিয়মিত আসায়াওয়া করতেন। খুবই অল্প বয়সে কবি তাঁর মাকে হারান। এই ব্যাপারে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন,”আমার মাকে কি রকম দেখতে তাও আমার মনে নেই। আমার জন্মের কিছুদিন পর আমার মা অসুস্থ্য হওয়ায় কোলকাতায় সেজো মাসির কাছে আমাকে রেখেছিলেন আমার আত্মীয়রা। মাসির মুখে শুনেছি আমার পরেও নাকি একজন ভাই জন্মেছিল।ওর নাম ছিল দেবব্রত।দেবব্রত শেষে দুধের অভাবে মারা গেল।মায়ের মৃত্যুর পর ভারত বাংলাদেশ,আবার বাংলাদেশ ভারত যাতায়াত করতে করতে কবির অভিভাবকহীন জীবন একটা শিক্ষাহীন জীবনে পরিণত হয়ে যেতে যেতে যখন কবি একটু ভালোমন্দ বুঝতে শিখলেন ।ঠিক তখনই কবি নিজ ইচ্ছায় প্রখর মনোভাবের সহিত পড়াশোনায় মনোনিবেশ করতে থাকেন “। কিন্তু ততক্ষণে কবির জীবনের অনেক মূল্যবান সময় নষ্ট হয়ে গেছে।কবি তাঁর মামা বাড়িতেই কোনরকমে বড় হতে লাগলেন।বড়রা সবসময় কোলকাতা মুখী হওয়ায় কবির ছাত্রজীবন বারবার ব্যাহত হয়।পরবর্তীতে কবির একক উদ্যোগে কবি মাদ্রা ঝালকাঠি গ্রামের পল্লী মঙ্গল প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যথেষ্ট সুনামের সাথে ভালো রেজাল্ট নিয়ে পড়াশোনা করেছেন।কবি পঞ্চম শ্রেণীতে স্কলারশিপ এক্সামিনেশনেও অংশগ্রহণ করেছেন।তাঁর ছাত্রজীবন কেবলমাত্র পড়াশোনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলোনা।লেখাপড়ার পাশাপাশি কবিতা আবৃত্তি, একক অভিনয়, যুক্তিতর্ক ইত্যাদি বিষয়গুলিতে পারদর্শী ছিলেন। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যের সহিত বলতে হচ্ছে, পেটের দু মুঠো আহার জোগাড় করার জন্য কবি সুব্রত মিত্রকে কখনো (১)রাজমিস্ত্রির সহায়ক,(২) কখনো গাড়ি ধোয়ার কাজ(৩) কখনো খালাসির ভূমিকায় ছুটে চলতে(৪) কখনো পরোটার দোকানে এটা থালা বাসন মাজার কাজ(৫) কখনো দারোয়ানের ভূমিকায় (৬) কখনো দোকানের সাধারণ কর্মচারী ভূমিকায়(৬) কখনো গাড়ি চালকের ভূমিকায়(৭) কখনো কোলকাতার সাহেবদের গা ম্যাসেজ করার কাজে(৮) কখনো বেলুন বিক্রির ফেরিওয়ালার বেসে(৯) কখনো কলকাতার বাবুদের মদের বোতল কিনে আনার কাজ(১০) কখনো আবার গাড়ি চালানোর শিক্ষকের ভূমিকায়ও এই কবিকে দেখা গেছে। বর্তমানে এই কবি জীবনের সকল প্রতিকূলতাকে সাথে নিয়েও প্রায় সাড়ে তিনশত পঞ্চাশটি ফেসবুকের সাহিত্য পরিবারের সহিত সক্রিয়ভাবে যুক্ত, এছাড়াও তিনি তার নিজস্ব ফেসবুক পেজ এবং প্রোফাইলের পাশাপাশি লিখছেন বর্তমান সময়ের দেশ-বিদেশের বেশ কয়েকটি অনলাইন পোর্টাল এবং সাহিত্য ম্যাগাজিনের পাতায়। কবি সুব্রত মিত্র ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় দেশ-বিদেশের অগণিত সাহিত্য পরিবারের তরফ থেকে প্রায় কয়েকশ অনলাইন সাহিত্য সম্মানে সম্মানিত হয়েছেন। ইংরেজি দুই হাজার কুড়ি সালের ১৫ ই আগস্ট ই-বুক আকারে আত্ম বাণী নামক একটি কাব্যগ্রন্থও মুক্তি পেয়েছে। বর্তমানে কবি সুব্রত মিত্র ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের দক্ষিণ ২৪ পরগনার গড়িয়া অঞ্চলের দক্ষিণ নতুন দিয়াড়া গ্রামে তার স্ত্রী এবং এক পুত্র সন্তানকে নিয়ে দিন গুজরান করেন । মাতৃহারা একটি ছন্নছাড়া জীবনের মধ্য থেকেও কবি নিজেকে একটি আলোকময় প্রতীক হিসেবে তুলে ধরতে চেষ্টা করছেন তাঁর আজীবন প্রচেষ্টার মাধ্যমে।
Please follow and like us:

আপনার মন্তব্য লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here